শুক্রবার, ৬ আগস্ট ২০২১, ২১ শ্রাবণ ১৪২৮ , ২৬ জিলহজ ১৪৪২

সাহিত্য
  >
প্রবন্ধ

মীর মশাররফ হোসেন আধুনিক বাংলা মুসলিম সাহিত্যের রূপকার

নিউজজি প্রতিবেদক নভেম্বর ১৩, ২০১৯, ১৩:৪০:৪২

  • মীর মশাররফ হোসেন আধুনিক বাংলা মুসলিম সাহিত্যের রূপকার

বাংলার মুসলমান সমাজে আধুনিক সাহিত্য ধারার সূচনা করেছিলেন তিনি। আধুনিক যুগের বাংলা সাহিত্যে মুসলিম সাহিত্যিকদের অগ্রদূত ও বাংলা গদ্যের অন্যতম পথিকৃৎ হিসেবে তাঁকে গণ্য করা হয়। তাঁর বহুমুখী প্রতিভার মাধ্যমে নাটক, উপন্যাস, প্রহসন, কাব্য ও প্রবন্ধ রচনা করে আধুনিক যুগে মুসলিম রচিত বাংলা সাহিত্যে সমৃদ্ধ ধারার প্রবর্তন করেন তিনি। 

মীর মশাররফ হোসেন বাংলা সাহিত্যের এক বিদগ্ধ প্রতিভা। জীবনের বিচিত্র অভিজ্ঞতাকে বর্ণাঢ্য সৃজনে তাঁর সকল রচনাবলীতে শৈল্পিক আঙ্গিকে রূপদান করেছেন বাংলা সাহিত্যের কীর্তিমান এই পুরুষ। আজ ১৩ নভেম্বর বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী এই সমাজ হিতৈষীর জন্মদিন। 

এটি বিষাদসিন্ধু রচয়িতা কথা সাহিত্যিক মীর মশাররফ হোসেনের ১৭২তম জন্মবার্ষিকী। ১৮৪৮ খ্রিষ্টাব্দের এই দিনে কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার নিকটবর্তী লাহিনী পাড়া গ্রামে বিখ্যাত সৈয়দ পরিবারে মীর মশাররফ হোসেন জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম ছিল সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন।

আধুনিক বাংলা গদ্য সাহিত্যের প্রথম মুসলিম রূপকার, বিষাদসিন্ধু ও জমিদার দর্পণখ্যাত মীর মশাররফ হোসেন। শৈশবে মীর মশাররফ হোসেন প্রথমে গ্রাম্য পাঠশালায় শিক্ষা গ্রহণ করেন, পরে কিছুদিন তিনি কুষ্টিয়া ইংরেজি স্কুলে এবং একবছর পদমদীর নবাব স্কুলে লেখাপড়া করেন। ছাত্রজীবন থেকেই তিনি সাহিত্য চর্চা শুরু করেন। কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী ‘গ্রাম্য বার্তা’ সম্পাদক হরিণাথ মজুমদার ওরফে ‘কাঙাল হরিণাথ’ তার সাহিত্য গুরু ছিলেন।

তৎকালীন তিনি এই ‘গ্রাম্য বার্তা’ এবং ঈশ্বর গুপ্তের ‘সংবাদ প্রভাকর’ পত্রিকা দুটিতে সাহিত্য চর্চা শুরু করেন। তার আগে বাংলা গদ্য সাহিত্যে কোনো উল্লেখযোগ্য মুসলমান সাহিত্যসেবী দেখা যায় না। আধুনিক যুগে মুসলমান সাহিত্যসেবীদের মধ্যে মীর মশাররফ হোসেন ছিলেন অগ্রপথিক। তার সাহিত্য কর্ম পরবর্তীকালে বহু মুসলিম সাহিত্য সাধককে সাহিত্য চর্চায় অনুপ্রাণিত করেছিল।

কর্মজীবনের শুরুতেই তিনি কিছুদিন ফরিদপুরের পদমদী নবাব এস্টেটে এবং কলকাতায় কর্মরত ছিলেন। পরে টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার জমিদারী এস্টেটে ম্যানেজারিতেই কর্ম জীবনের অধিকাংশ সময় অতিবাহিত করেন। টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার এস্টেটে কাজের সময়টাকেই তার জীবনের শ্রেষ্ঠ সময় মনে করা হয়। কারণ এখান থেকেই তিনি সামাজিক ও সাহিত্যে প্রতিষ্ঠা লাভ করেন।

অতি অল্প বয়সেই তার সাহিত্য প্রতিভা বিকশিত হয়। তার প্রথম গ্রন্থ ‘রত্নাবতী’ নামক উপন্যাস ১৮৬৯ খ্রিষ্টাব্দের ২ সেপ্টেম্বর মাত্র ২১ বছর বয়সে রচিত ও প্রকাশিত হয়। তার সর্বশেষ গ্রন্থ ‘আমার জীবনী’ এটি ১২ খণ্ডে ১৯০৮ খ্রিষ্টাব্দ থেকে ১৯১০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত প্রকাশিত হয়। তার ‘জমিদার দর্পণ’ নাটক আত্মজীবনীমূলক, ‘উদাস পথিকের মনের কথা’ তার ব্যঙ্গ-বিদ্রুপাত্মক রচনা। কারবালার বিষাদময় ঘটনা নিয়ে লেখা সর্ববৃহৎ উপন্যাস ‘বিষাদ সিন্ধু’ (১৮৮৫-১৮৯১ খ্রি:) তার শ্রেষ্ঠ রচনা। আজ অবধি প্রায় ১২০ বছর ধরে বাঙালি পাঠকের হৃদয়ে সমাদৃত আসন দখল করে আছে। 

মীর মশাররফ হোসেন বাংলা কাব্য, প্রবন্ধ উপন্যাস রচনা করে আধুনিক যুগে মুসলিম বাংলা সাহিত্যের এক নব্য সমৃদ্ধ ধারার প্রবর্তন করেন। সাহিত্য রস গ্রন্থ রচনাতেও তিনি বিশেষ কৃতিত্ব দেখিয়েছেন। এ ছাড়া উপন্যাস ‘রত্নাবতী’ থেকে ‘বিবি কুলসুম বা আমার জীবনীর জীবনী’ প্রকাশের মধ্যবর্তী সময়ে উপন্যাস, নাটক, প্রহসন, কাব্য, গীতি নাট্য, প্রবন্ধ, সাহিত্য, সমাজ চিত্র প্রভৃতি নানা বিষয়ে তার প্রকাশিত, অপ্রকাশিত ৩৫ খানা গ্রন্থের সন্ধান পাওয়া গেছে। 

তিনি একাধারে ছিলেন কবি, নাট্যকার, ঔপন্যাসিক, প্রাবন্ধিক, জীবনীকার ও শ্রেষ্ঠ সমাজ সচেতন ব্যক্তি। বাংলা সাহিত্যের শ্রেষ্ঠ রূপকার, মুসলমান সমাজের পথ প্রদর্শক মীর মশাররফ হোসেন ১৯১২ খ্রিষ্টাব্দের ১৯ ডিসেম্বর প্রায় ৬৪ বছর বয়সে নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করেন। ইহলোকে তিনি সশরীরে না থাকলেও তার কীর্তির মাঝে চির উজ্জ্বল হয়ে আছেন বাংলা সাহিত্যের কিংবদন্তি এই কথা সাহিত্যিক।

নিউজজি/এসএফ

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
        
copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers