সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ , ৮ মুহররম ১৪৪৬

বিদেশ

পশ্চিম তীরে ইহুদি বসতি সম্প্রসারণের নিন্দা ইসরায়েলি জেনারেলের

নিউজজি ডেস্ক ১০ জুলাই , ২০২৪, ১৭:৪৭:৩৯

57
  • ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা: ফিলিস্তিনের অধিকৃত পশ্চিম তীরে ইহুদি বসতি সম্প্রসারণের নিন্দা করেছেন ইসরায়েলের সামরিক বাহিনীর একজন জেনারেল। একইসঙ্গে এই অঞ্চলে বসতি স্থাপনকারীদের সহিংসতার সমালোচনাও করেছেন তিনি। এমনকি ফিলিস্তিনি বাসিন্দারা কোনও ধরনের হুমকি সৃষ্টি করে না বলেও মন্তব্য করেছেন বিদায়ী ওই ইসরায়েলি জেনারেল। খবর আল জাজিরা।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, একজন ইসরায়েলি জেনারেল ফিলিস্তিনের অধিকৃত পশ্চিম তীরে বসতি সম্প্রসারণের বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্তের নিন্দা করেছেন এবং এই অঞ্চলে বসতি স্থাপনকারীদের ক্রমবর্ধমান সহিংসতার সমালোচনা করেছেন বলে ইসরায়েলি মিডিয়া জানিয়েছে।

ইসরায়েলি ওই জেনারেলের নাম মেজর জেনারেল ইয়েহুদা ফক্স। তিনি ইসরায়েলের কেন্দ্রীয় কমান্ডের বিদায়ী প্রধান। গত সোমবার বিদায় অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ইসরায়েলি বসতি স্থাপনকারীরা অধিকৃত পশ্চিম তীরে সহিংসতার মাধ্যমে ‘জাতীয়তাবাদী অপরাধে’ লিপ্ত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ইসরায়েলি বসতি স্থাপনকারীদের এই কর্মকাণ্ড পশ্চিম তীরে ‘ফিলিস্তিনি বাসিন্দাদের মধ্যে বিশৃঙ্খলা ও ভয়ের বীজ বপন করেছে, যারা (ইসরায়েলিদের জন্য) কোনো হুমকি সৃষ্টি করেনি।’

জেনারেল ইয়েহুদা ফক্স বলেন, ‘এটা আমার চোখে ইহুদি ধর্ম নয়। অন্তত যার সাথে আমি আমার বাবা এবং মায়ের বাড়িতে বড় হয়েছি তার নয়। এটা তাওরাতের পথ নয়। এটির মাধ্যমে শত্রুর পথ অবলম্বন করা হচ্ছে।’

গত বছরের অক্টোবরে গাজায় ইসরায়েলের আগ্রাসন শুরু হওয়ার পর থেকে ইসরায়েলি বাহিনী এবং বসতি স্থাপনকারীরা ফিলিস্তিনের অধিকৃত পশ্চিম তীরেও ফিলিস্তিনি শহর ও গ্রামগুলোতে অভিযান ব্যাপকভাবে বাড়িয়েছে।

ফিলিস্তিনি কর্মকর্তাদের মতে, গত অক্টোবর থেকে ইসরায়েলি বাহিনী এবং ভূখণ্ডে বসতি স্থাপনকারীদের হাতে কমপক্ষে ৫৫৩ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন এবং আরও ৯ হাজার ৫১০ জনকে আটক করা হয়েছে।

আল জাজিরা বলছে, ফক্সের এই মন্তব্য এমন এক সময়ে সামনে এলো যখন কয়েকদিন আগেই ইসরায়েলের সরকার অধিকৃত পশ্চিম তীরে অবৈধ বসতিগুলোতে আরও ৫ হাজারেরও বেশি নতুন আবাসন ইউনিট অনুমোদন করেছে।

ইসরায়েল-অধিকৃত পশ্চিম তীরে প্রায় ৩০ লাখ ফিলিস্তিনি বাস করে এবং এছাড়া সমগ্র এই অঞ্চলজুড়ে ১০০ টিরও বেশি ইসরায়েলি বসতিতে ৫ লাখেরও বেশি ফিলিস্তিনি বাস করে। বসতি স্থাপনের এই সম্প্রসারণ অসলো চুক্তিতে বর্ণিত পরিকল্পনার জন্য প্রধান বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ওই চুক্তিতে ফিলিস্তিনিদের কাছে ইসরায়েল-নিয়ন্ত্রিত এলাকাগুলো ধীরে ধীরে হস্তান্তরের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল।

ইসরায়েলের অর্থমন্ত্রী বেজালেল স্মোট্রিচ নিজেও একজন বসতি স্থাপনকারী। তিনি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর নেতৃত্বে বসতি সম্প্রসারণ ব্যাপকভাবে বাড়ানোর বিষয়টি তদারকি করছেন।

জেনারেল ফক্স স্বীকার করেছেন, অধিকৃত পশ্চিম তীর অঞ্চলের দায়িত্বে থাকা কমান্ডের প্রধান হিসাবে এই বসতি স্থাপন সম্প্রসারণ এবং সহিংসতা মোকাবিলা করা তার দায়িত্ব ছিল, কিন্তু আফসোস করে তিনি বলেন, তিনি ‘সব সময় সফল হননি।’

তিনি বলেন, ‘সেন্ট্রাল কমান্ডের কাজগুলো সম্পন্ন করার ক্ষমতাও একটি কার্যকরী এবং শক্তিশালী ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের অস্তিত্বের ওপর নির্ভর করে, কার্যকর নিরাপত্তা ব্যবস্থাও প্রয়োজনীয় যা আইনশৃঙ্খলা বজায় রাখে। এই ফ্রন্টে নিরাপত্তার বাস্তবতাকে সক্রিয়ভাবে খাটো করা আসলে ইসরায়েল রাষ্ট্রের নিরাপত্তাকেই বিপন্ন করে।’

গত বছরের শেষের দিকে জাতিসংঘের প্রকাশিত এক পরিসংখ্যানে বলা হয়েছিল, গত ৭ অক্টোবর গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলের আগ্রাসন শুরুর পর ইসরায়েল-অধিকৃত পশ্চিম তীরে ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরায়েলি বসতি স্থাপনকারীদের দৈনিক হামলার সংখ্যা দ্বিগুণেরও বেশি বেড়েছে।

নিউজজি/এস দত্ত

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন