মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ , ২৮ জিলকদ ১৪৪৩

বিদেশ

কাদা-পানি স্রোত খেলনার মতো উলটে দিল ট্রেন!

নিউজজি ডেস্ক ১৭ মে , ২০২২, ১৬:১১:২৭

131
  • ইন্টারনেট থেকে

ঢাকা: মাত্র কয়েক মিনিট। গোটা হাফলং স্টেশনকে গ্রাস করে ফেলল কাদা-পানির স্রোত। পুরো চেহারাই বদলে গেল স্টেশনের। কোথায় স্টেশন! কয়েক মিনিটে চারপাশ যেন একটা স্রোতস্বিনীর চেহারা নিয়ে ফেলে। চারদিকটা ঘোলা। যেদিকে চোখ যায় কেবল ঘোলা পানি। অঝোরে বৃষ্টি চলছে। তার মধ্যেই গাছ, কাঠ, ধ্বংসস্তূপ ঠেলে নিয়ে স্টেশনেই দাঁড়িয়ে থাকা একটি গোটা ট্রেনের উপর আছড়ে পড়ল সেই পানি।

চারদিকে ঘোলা বানের পানি; সেই সঙ্গে চলছে অঝোরে বৃষ্টি। তার মধ্যেই গাছ, কাঠ, ধ্বংসস্তূপ ঠেলে নিয়ে স্টেশনেই দাঁড়িয়ে থাকা একটি ট্রেনের উপর আছড়ে পড়ল সেই স্রোত, খেলনার মতো একের পর এক বগি উল্টে দিল। শিউরে ওঠা সেই ভিডিও প্রকাশ্যে এসেছে। আর এই ছবিই বলে দিচ্ছে আসামের বন্যা পরিস্থিতি কতটা ভয়াবহ।

বাজালি, বাকসা, কাছাড়, চরাইদেও, দারাং, ধেমাজি, ডিব্রুগড়, ডিমা হাসাও, কামরূপ, কার্বি আলং, নওগাঁও, শোনিতপুর, মাজুলি এবং হোজাই-সহ ২০টি জেলায় দেখা দিয়েছে ব্যাপক বন্যা। এই জেলাগুলির মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা হোজাই এবং কাছাড় জেলার। আসাম রাজ্য সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, হোজাইয়ে মানুষ বন্যার কবলে পড়েছেন ৭৯ হাজার মানুষ। অন্য দিকে, কাছাড়ে বন্যা উপদ্রুত মানুষের সংখ্যা ৫২ হাজার।

রাজ্যের ২০ জেলার মোট ৬৫২টি গ্রামে বন্যা উপদ্রুত মানুষের সংখ্যা ২ লাখেরও বেশি। বানের পানিতে তলিয়ে গেছে রাজ্যের প্রায় ১৭ হাজার হেক্টর জমির ফসল।

কাছাড়ে বন্যায় মৃত্যু হয়েছে দু’জনের। ডিমা হাসাওয়ে অতিবৃষ্টি ও বন্যার ফলে সৃষ্ট ভূমিধসে মৃত্যু হয়েছে আরও তিন জনের। ধসের কারণে বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে হাফলং এবং ডিমা হাসাও। গুয়াহাটি-শিলচর এক্সপ্রেস ডিমা হাসাও জেলার নিউ হাফলং স্টেশনে বন্যার কারণে আটকে পড়ে। ট্রেনে আটকে থাকা ১০০ যাত্রীকে বিমানবাহিনীর হেলিকপ্টারে উদ্ধার করা হয়েছে। অন্য দিকে, শিলচর-গুয়াহাটি এক্সপ্রেস ডিমা হাসাও এবং কাছাড় জেলার মাঝামাঝি স্থানে আটকে পড়ে।

১৫ মে থেকে ডিমা হাসাও জেলার হাফলং শহরের সঙ্গে সড়ক, রেল যোগাযোগ পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন। ডিমা হাসাওয়ের অবস্থা অবশ্য আরও ভয়াবহ। বন্যার তীব্রতায় বর্তমানে বিচ্ছিন্ন দ্বীপের মতো অবস্থায় পৌঁছেছে এই জেলার। বন্যার কারণে ডিমা হাসাওয়ের লামডিং-বদরপুর ট্রেন শাখা পুরোপুরি ক্ষতিগ্রস্ত। ফলে দক্ষিণ আসাম, মণিপুর, মিজোরাম এবং ত্রিপুরার রেল যোগাযোগ থমকে গেছে। উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেল জানিয়েছে, দ্রুত পরিষেবা চালু করার কাজ শুরু হয়ে গেছে।

ত্রাণ শিবিরে অসংখ্য মানুষ

রাজ্যের ১৩৮টি গ্রামের পরিস্থিতির ব্যাপক অবনতি হওয়ায় সেসব গ্রামের সবাইকে ত্রাণ শিবিরে সরিয়ে এনেছেন দুর্যোগ ব্যাবস্থাপনা বিভাগের কর্মীরা। উপদ্রুত এসব মানুষের জন্য ইতোমধ্যে ১ হাজার ৬৮৩টি ত্রাণ শিবির খোলা হয়েছে।  

১৫ মে রাত থেকে প্রবল বর্ষণ চলছে আসামে। অতিবর্ষণ ও বন্যাজনিত কারণে রাজ্যের একাধিক জায়গায় ভূমিধস দেখা দিয়েছে। কেবল কার্বি আলং জেলাতেই  ৪০টির বেশি বাড়ি ভুমি ধসে ভেঙে গেছে বলে জানিয়েছে রাজ্য প্রশাসন সূত্র।

নিউজজি/এসজেড

 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন