রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ৯ আশ্বিন ১৪২৯ , ২৮ সফর ১৪৪৪

খেলা

বাবরের সেঞ্চুরিতে পাকিস্তানের সর্বোচ্চ ব্যবধানে জয়

স্পোর্টস রিপোর্টার সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২২, ০০:৪৪:৩৩

256
  • বাবরকে জড়িয়ে ধরেছেন রিজওয়ান। ছবি-ক্রিকইনফো

ইংল্যান্ড : ১৯৯/৫ (২০.০ ওভারে)
পাকিস্তান : ২০৩/০ (১৯.৩ ওভারে)
ফল : পাকিস্তান ১০ উইকেটে জয়ী।
প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচ : বাবর আজম (পাকিস্তান)।

১১ মাস আগে দুবাইয়ে ১৫২ চেজ করে ভারতের বিপক্ষে ১০ উইকেটে জয়ের রেকর্ড ছিল এতোদিন উইকেটের ব্যবধানে পাকিস্তানের সর্বোচ্চ জয়। সেই ম্যাচের দু্ই ওপেনার বাবর আজম-রিজওয়ানের ব্যাটে বৃহস্পতিবার রাতে করাচিতে একই ব্যবধানে জয়ের উৎসব করেছে পাকিস্তান।

কাঁটায় কাঁটায় ২০০ চেজ করে এই জুটির অবিচ্ছিন্ন পার্টনারশিপে ৩ বল হাতে রেখে ১০ উইকেটে ইংল্যান্ডকে হারিয়েছে পাকিস্তান। প্রথম ম্যাচে ৬ উইকেটে ইংল্যান্ডের কাছে হারের বদলা নিয়েছে পাকিস্তান সর্বোচ্চ ব্যবধানে জিতে। ১৭ বছর পর পাকিস্তানের মাটিতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজটি এখন ১-১এ সমতায় ফিরেছে।
বাবর-রিজওয়ান জুটির রেকর্ড হয়েছে আরো একটি। ২০২১ সালে সেঞ্চুরিয়নে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বাবর আজম-রিজওয়ানের ১৯৭ রানের ওপেনিং পার্টনারশিপ ছিল পাকিস্তানের যে কোনো জুটিতে সর্বোচ্চ। সেই রেকর্ড ছাড়িয়ে বৃহস্পতিবার রাতে এই জুটি অবিচ্ছিন্ন ছিলেন ২০৩ রানে ! করাচিতে আত্মবিশ্বাস ফিরে পাওয়া রাতে বাবর আজম দিয়েছেন দ্বিতীয় সেঞ্চুরি উপহার (৬৬ বলে ১১ চার, ৫ছক্কায় ১১০*)।
টি-২০তে এদিন ৮ হাজারী ক্লাবের সদস্যপদ পেয়েছেন বাবর আজম। মাত্র ২১৮ ইনিংসে সংক্ষিপ্ত ভার্সনের ক্রিকেটে ৮ হাজারী ক্লাবের সদস্যপদ পেয়েছেন তিনি। তার চেয়ে কম ইনিংসে ৮ হাজারী ক্লাবের সদস্যপদ টি-২০তে আছে শুধু ক্যারিবিয়ান লিজেন্ডারি ক্রিস গেইল-এর। ২১৩ ইনিংসে পূর্ণ করেছিলেন তিনি ৮ হাজার রান।  
 টি-টোয়েন্টিতে টানা তৃতীয় হাফ সেঞ্চুরির ইনিংসে বাবর আজম অপরাজিত ছিলেন ৫১ বলে ৫ চার, ৪ ছক্কায় ৮৮ রানে।
বাপ-দাদার জন্মভুমিতে এসে ব্যাটকে তরবারি বানিয়েছিলেন ইংল্যান্ড অধিনায়ক মঈন আলী। ২৩ বলে ৪ চার, ৪ ছক্কায় ৫৫ রানে অবিচ্ছিন্ন ছিলেন এই পাকিস্তান বংশোদ্ভুত ইংল্যান্ডের নাগরিক। বেন ডাকেট করেছেন ২২ বলে ৪৩। বোলারদের বধ্যভুমিতে ২০০ চেজ করতে পেরেছে পাকিস্তান রিজওয়ান-বাবরের দারুণ বোঝাপড়ায়।  
চার-ছক্কার লড়াইয়ে দু'দল ছিল প্রায় কাছাকাছি। ইংল্যান্ড যেখানে মেরেছে ১৭টি চার, পাকিস্তান সেখানে ১৬টি বাউন্ডারি মেরেছে। উভয় দলই ছক্কা মেরেছে ৯টি করে! শুরুতে ব্যাটে ঝড় তুলেছিলেন রিজওয়ান।  ৩০ বলে ফিফটি করেছেন তিনি যখন, তখন বাবরের রান ৩১। এর পর দ্রুতগতিতে রান তুলে রিজওয়ানকে ছাড়িয়ে গেছেন বাবর।

টানা ৭ ইনিংস ফিফটিহীন কাটানোর যন্ত্রনা লাঘবে এদিন ৩৯ বলে ফিফটি, ৬২ বলে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি সেঞ্চুরি উদযাপন করেছেন পাকিস্তান অধিনায়ক। শ্রীলংকার বিপক্ষে এশিয়া কাপের ফাইনালে ৫৫ রানের ইনিংস থেকে শুরু, করাচিতে সিরিজের প্রথম ম্যাচে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৬৮'র পর দ্বিতীয় ম্যাচে ৮৮*! কি দারুণ ফর্মেই না আছেন রিজওয়ান!
 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন