বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট ২০২২, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯ , ১৩ মুহররম ১৪৪৪

খেলা

সিকান্দার-কাইয়ার জোড়া সেঞ্চুরিতে বড় শিক্ষা পেল বাংলাদেশ

শামীম চৌধুরী আগস্ট ৫, ২০২২, ২২:১২:৫৯

233
  • বাংলাদেশের বিপক্ষে দুই ম্যাচ উইনার। ছবি-ক্রিকইনফো

বাংলাদেশ : ৩০৩/২ (৫০ ওভারে)
জিম্বাবুয়ে : ৩০৭/৫ (৪৮.২ ওভারে)
ফল : জিম্বাবুয়ে ৫ উইকেটে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ : সিকান্দার রাজা (জিম্বাবুয়ে)।
 
হারারেতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সর্বোচ্চ স্কোর (৩০৩/৩) করেও লাভ হয়নি। মোসাদ্দেককে মিড উইকেটের উপর দিয়ে সিকান্দার রাজা'র বিশাল ছক্কায় ১০ বল হাতে রেখে জিম্বাবুয়ের ৫ উইকেটে জয়ের দৃশ্যটা দেখতে হয়েছে বাংলাদেশ সমর্থকদের।
আইসিসি ওয়ানডে সুপার লিগের অংশ নয়, সঙ্গত কারণে এই সিরিজটি এড়িয়ে যেতে পারতো বাংলাদেশ। কিন্তু তা করেনি বাংলাদেশ। অ্যাকাউন্ট থেকে বড় অঙ্ক তুলে জিম্বাবুয়ে সফরে দল পাঠিয়েছে বিসিবি।

এক সময় আত্মবিশ্বাস ফিরে পাওয়ার প্রয়োজন দেখা দিলে জিম্বাবুয়ের সঙ্গে সফরসূচি ঠিক করতো বিসিবি। সেই ধারণার বশবর্তী হয়ে এবারো বাংলাদেশ দলকে পাঠিয়েছে জিম্বাবুয়ে সফরে। তবে এই কৌশল বুমেরাং হয়েছে।বাংলাদেশের সঙ্গে হারতে হারতে এখন বাংলাদেশকেই হারাতে শিখছে জিম্বাবুয়ে।  
দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক অলরাউন্ডার ল্যান্স ক্লুজনারের ছোঁয়ায় যে আমূল বদলে গেছে জিম্বাবুয়ে দল, তা প্রদর্শন করেছে জিম্বাবুয়ে টি-২০ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে সর্বশেষ ৫ ম্যাচ জিতে। জয়ের অভ্যেসটা নিয়ে বাংলাদেশের উপর ঝাঁপিয়ে পড়েছে তারা টি-২০ সিরিজে। টি-২০ সিরিজ ২-১ এ বাংলাদেশকে হারিয়ে সতর্কবার্তা দিয়েছিল জিম্বাবুয়ে। সতর্ক সঙ্কেতটা যে ছিল মহা, তা আমলে না এনে বড় ভুল করেছে বাংলাদেশ।

জিম্বাবুয়েকে তুড়ি মেরে উড়িয়ে দেয়া যাবে বলে সাকিবের ছুটির আবেদন মঞ্জুর করেছে বিসিবি। দেশসেরা ক্রিকেটারের অনুপস্থিতি ভালই টের পেয়েছে বাংলাদেশ। ওয়ানডে ক্রিকেটে তামিমের ৮ হাজার রানের মাইলস্টোনের ম্যাচে ৩০৩/৩ স্কোরেও ভরসা রাখতে পারেনি বাংলাদেশ। চতুর্থ উইকেট জুটিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে রেকর্ড১৯২ রানের পার্টনারশিপ, সিকান্দার রাজা ( ১০৯ বলে ১৩৫ )-ইনোসেন্ট কাইয়ার (১২২ বলে১১০) জোড়া সেঞ্চুরিতে ১০ বল হাতে রেখে ৫ উইকেটে জিতে সিরিজ শুরু করেছে জিম্বাবুয়ে।
ওয়ানডে র‍্যাঙ্কিংয়ে দু'দলের মধ্যে বিস্তর ব্যবধান। বাংলাদেশ যেখানে ৭, জিম্বাবুয়ে সেখানে ১৫! দু'দলের সর্বশেষ ১৯টি দেখায় শতভাগ সফল বাংলাদেশ। সর্বশেষ ৫টি ওয়ানডে সিরিজের সব ক'টিতেই জিম্বাবুয়েকে হোয়াইট ওয়াশ করেছে বাংলাদেশ। সেই জিম্বাবুয়ের কাছেই এবার বড় বিপর্যস্ত।
 টোয়েন্টি-২০ সিরিজ ২-১এ হেরে বড় ধাক্কা সামাল দিয়ে প্রিয় ফরম্যাট ওয়ানডেতে ফিরেই ব্যাটিংয়ে চেনা বাংলাদেশ হাজির। টসে হেরে ব্যাট করতে এসেই হাফ সেঞ্চুরির দেখা-মাহমুদউল্লাহ ছাড়া সবার স্কোর ছুঁয়েছে তা। বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটার হিসেবে ওয়ানডেতে ৮ হাজারী ক্লাবের সদস্যপদ প্রাপ্তির দিনে তামিম থেমেছেন ৬২-তে। ইনজুরিতে পড়ে মাঠ ছাড়ার আগে লিটনের নামের পাশে ৮১ রান। ৩ বছর ৫দিন পর ওয়ানডে প্রত্যাবর্তন ইনিংস উদযাপন করেছেন বিজয় হাফ সেঞ্চুরিতে।

সময়ের হিসেবে ৭ বছর ৯দিন পর হাফ সেঞ্চুরি উদযাপন করেছেন বিজয় প্রিয় ফরমেটে (৭৩)। হজব্রত পালন করে মাঠে ফিরেই মুশফিক দিয়েছেন হাফ সেঞ্চুরি উপহার (৫২*)। ভায়রা মাহমুদউল্লাহ পেয়েছেন মাত্র ১২ বল। তাতেই তার স্কোর ২০*। এমন ব্যাটিংয়ে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৬ষ্ঠ বারের মতো ইনিংসে ৩শ' প্লাস করতে পেরেছে বাংলাদেশ। হারারেতে এর আগে সর্বোচ্চ স্কোর ছিল বাংলাদেশের ৩০২/৫। গত বছরের সেই স্কোর টপকে শুক্রবার বাংলাদেশের স্কোর ৩০৩/২।
ব্যাটিং পাওয়ার প্লে-তে সাবধানী ব্যাটিং৫০/০, ওপেনিং পার্টনারশিপে তামিম-লিটনের দারুণ বোঝাপড়ায় ১২০ বড় স্কোরের আবহ দিয়েছে। শেষ ৬০ বলে টোয়েন্টি-২০ স্টাইলে ব্যাটিং করেছেন বিজয়, মুশফিক, লিটন। এই ৬০ বলে বাংলাদেশ যোগ করেছে ১১৯।
 ওয়ানডেতে ৮হাজারী ক্লাবের সদস্যপদ পেতে ব্যাটিংয়ে নেমেছিলেন অধিনায়ক তামিম। এই  মাইলস্টোনে দরকার তার ৫৭। একদিবসীয় ক্রিকেটে ফর্মের তুঙ্গে থাকা তামিমের সামনে প্রতিপক্ষ যখন জিম্বাবুয়ে, ক্যারিয়ারের সেরা দুটি ইনিংস এই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে (১৫৪ ও ১৫৮), তখন এই সিরিজে তিনটি তামিমের মাইলস্টোনের দিকেই চোখ সমর্থকদের। ৫৭ রানের লক্ষ্য নিয়ে ব্যাট করতে নেমে প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে ওয়ানডেতে ৮ হাজারী ক্লাবের সদস্যপদ পেয়েছেন তামিম।

প্রথম স্কোরিং শটটি তার নাগারাভাকে ইনিংসের ৬ষ্ঠ বলে ফ্লিক শটে বাউন্ডারি দিয়ে। নুয়াচিকে এক ওভারে ২টি বাউন্ডারিতে পেয়েছেন আত্মবিশ্বাস। সিকান্দার রাজাকে থার্ডম্যানে বাউন্ডারি শটে পৌছে গেছেন এই মাইলস্টোনে। ৭ হাজার থেকে ৮ হাজার, এই এক হাজার রানটি এসেছে একটু দ্রুতই। লেগেছে তামিমের মাত্র ২৩টি ইনিংস। ২২৯তম ম্যাচে ২২৭তম ইনিংসে তামিম পূর্ণ করেছেন ওয়ানডেতে ৮ হাজার রান।
মাইলস্টোনের ম্যাচে তামিম থেমেছেন ৬২ রানে, সিকান্দার রাজাকে হুক করতে যেয়ে শর্ট থার্ডম্যানে ক্যাচ দিয়ে। তবে ৮৮ বলে ৬২ রানের এই ইনিংসে আছে দর্শনীয় ৯টি বাউন্ডারি। নুয়াচি,নাগারাভা,বার্লকে কভার দিয়ে ট্রেডমার্ক শটটি এক কথায় অসাধারণ। শুধু নিজে মাইলস্টোন পূর্ণ করেননি। লিটনকে নিয়ে ১২০ রানের ওপেনিং পার্টনারশিপে দিয়েছেন নেতৃত্ব তামিম। ওয়ানডেতে ১৪ সেঞ্চুরির পাশে ৫৩তম সেঞ্চুরিটি অবশ্য এদিন পূর্ণ করতে সতর্ক ব্যাটিং করেছেন তামিম। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১০ম হাফ সেঞ্চুরিতে লেগেছে তার ৭৯টি বল। ৪৮-এ আটকে ছিলেন বেশ কিছুক্ষণ। অবশিষ্ট ২ রানে লেগেছে তার ১৫টি বল।
তামিমের মতো লিটনও এদিন করেছেন সতর্ক ব্যাটিং। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ৬ষ্ঠ ফিফটি এদিন পূর্ণ করেছেন ৭৫ বলে।  হাফ সেঞ্চুরি পূর্ণ করার পর ব্যাটটা চওড়া করতে চেষ্টা করেছেন। ওয়েলিংটন মাসাকাদজাকে পর পর ৩টি বাউন্ডারিতে সে বার্তাই দিয়েছেন। ক্যারিয়ারের ৬ষ্ঠ ওডিআই সেঞ্চুরিতেও ছিল তার চোখ। তবে ৮৯ বলে ৮১ রানের ইনিংসটা থেমেছে তার চোট পেয়ে। যে ইনিংসে ছিল ৯ চার, ১ ছক্কা। সিকান্দার রাজাকে কুইক সিঙ্গল নিতে যেয়ে পায়ের পেশিতে টান পড়ায় দাঁড়িয়ে উঠতে পারেননি লিটন দাস।  স্ট্রেচারে শুয়েই মাঠ ছাড়তে হয়েছে ডানহাতি এই ওপেনারকে।
৫০ ওভার ফরম্যাটের ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে ১১৩৮ রানে লিস্ট 'এ' ক্রিকেটে বিশ্বরেকর্ড করে বিজয় ফিরেছেন জাতীয় দলে। তবে ৫০ ওভারের ম্যাচের পারফরমারকে নামিয়ে দেয়া হয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে টেস্ট এবং টি-২০তে, জিম্বাবুয়ে সফরেও টপ অর্ডার সঙ্কটে টি-২০তে নামিয়ে দেয়া হয়েছে তাকে। তার ফলটা ভাল হয়নি।

সেন্ট লুসিয়া টেস্টে ২৩ও ৪, ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে তিন ম্যাচের টি-২০তে ১৬,৩,১০, জিম্বাবুয়ে সফরে টি-২০তে সেখানে ২৬,১৬,১৪! এমন পারফরমেন্সে ওয়ানডে সিরিজে তার ফেরার পথ রুদ্ধ হওয়ার কথা। তবে শান্ত'র পরিবর্তে বিজয়কে নামিয়ে দিয়ে যথার্থ সিদ্ধান্ত নিয়েছে টিম ম্যানেজমেন্ট। প্রিয় ফরমেটে ৩ বছর ৫দিন পর প্রত্যাশিত ব্যাটিং করেছেন বিজয়।

শুরু থেকে ছিলেন স্ট্রাইক রেটের প্রতি সজাগ। ৪৭ বলে ৪ চার, ২ ছক্কায় ৩৯তম ওয়ানডেতে ৪র্থ হাফ সেঞ্চুরি পূর্ণ করে ব্যাটটা আরো চওড়া। তবে নুয়াচির বলে ছক্কা মারতে যেয়ে লং অনে দিয়েছেন ক্যাচ (৬২ বলে ৭৩)। এই নুয়াচিকেই পর পর দুই বলে মেরেছেন বিজয় চার, ছক্কা!  নুয়াচির শর্ট বলে আপার কাটে তার বাউন্ডারিও পেয়েছে বাহাবা। জিম্বাবুয়ে বোলারদের মধ্যে উইকেটের দেখা পেয়েছেন নুয়াচি (১/৬৫), সিকান্দার রাজা (১/৪৮)।
ওয়ানডেতে তিনশ' প্লাস চেজ করার অতীত আছে জিম্বাবুয়ের ৪ বার। ২০১১ সালে বুলাওয়েতে নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে ৩২৯ চেজ করেছে জিম্বাবুয়ে ১ বল হাতে রেখে, ১ উইকেটে জিতে। ওই অতীত থেকে টনিক নিয়েছে জিম্বাবুয়ে। ইনিংসের প্রথম দুই ওপেনার চাকাভা (৬ বলে ২), মুসকান্দা (৫ বলে ৪) এবং নিজের দোষে মাদভেরে রান আউটে (২৭ বলে ১৯) কাঁটা পড়ে স্কোরটা যখন ৬১/৩, তখনো হতোদ্যম হয়নি জিম্বাবুয়ে।
বাংলাদেশের বিপক্ষে টি-২০ সিরিজে সিরিজ সেরার পুরস্কারে উজ্জীবিত সিকান্দার রাজা ৪৩ রানের মাথায় তাসকিনের বলে কভারে তাইজুলের হাত থেকে বেঁচে যাওয়ার পর আর ভুল করেননি। শরিফুলের বলে থার্ডম্যানের ফিল্ডারের হাত থেকে ৬৮ রানের মাথায় বেঁচে যাওয়া কাইয়া পন করেছেন, সেঞ্চুরি না করে ফিরবেন না। 

এক বলের ব্যবধানে কাইয়া-রাজা দিয়েছেন সেঞ্চুরি উপহার। তাসকিনকে এক্সট্রা কভারে সিঙ্গল নিয়ে ১১৫ বলে অভিষেক সেঞ্চুরি উদযাপন করেছেন কাইয়া। এক বল পর ২ রান নিয়ে ওয়ানডে ক্যারিয়ারে ৪র্থ সেঞ্চুরি পূর্ণ করেছেন সিকান্দার রাজা। ইনিংসের মাঝের ওভারগুলো এতোটাই স্বাচ্ছন্দে এই জুটি ব্যাট করেছে, তাতে ৩৫ম ওভার থেকে রান সংগ্রহে বাংলাদেশকে পেছনে ফেলেছে জিম্বাবুয়ে।  
মোসাদ্দেকের বলে শর্ট ফাইন লেগে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন যখন কাইয়া (১২২ বলে ১১ চার, ২ ছক্কায় ১১০) ততোক্ষন বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ের ৭৯ ওয়ানডে ম্যাচে চতুর্থ উইকেট জুটিতে সর্বোচ্চ ১৯২ রানের রেকর্ডটা হয়ে গেছে। শেষ ৩০ বলে ২৯ রানের টার্গেটে শেষ ওভার থ্রিলার পর্যন্ত নিতে দেননি জংগে (১৯ বলে ২৪)। ১৭ রানের মাথায় মোস্তাফিজের বলে লং লেগে তাসকিনের হাত থেকে বেঁচে যাওয়া জংগেকে থামিয়েছেন মিরাজ (১৯ বলে ২২ চার, ১ ছক্কায় ২৪)। ৮১ বলে ৪র্থ সেঞ্চুরি উদযাপনে পাওয়ার হিটিংয়ের দীক্ষা দেয়া সিকান্দার রাজা (১০৯ বলে ৮ চার, ৬ ছক্কায় ১৩৫*) ৪৯তম ওভারের দ্বিতীয় বলে মোসাদ্দেককে মিড উইকেটের উপর  দিয়ে ছক্কায় বাংলাদেশকে ডুরিয়েছেন হতাশায়।
৩০৩/৩ স্কোর নিয়ে নির্ভার রাখার কথা যাদের, সেই বোলিং ডিপার্টমেন্টের কেউ দিতে পারেননি আস্থার প্রতিদান। মোস্তাফিজ ক্রমেই হারাচে।ছন তার বোলিং ধার (৯-১-৫৭-১)। ইনিংসের মাঝপথে ইনজুরিতে পড়ে দলের প্রয়োজনে দ্বিতীয় দফায় বোলিং করতে নামিয়ে শরিফুলের কাছ থেকে সেরাটা আদায় করা যায়নি (৮.৪-১-৫৭-১)। উইকেটহীন তাসকিনের খরচা ৫২। দুই অফ স্পিনার মিরাজ সেখানে ১ উইকেটের বিপরীতে ৫৯, মোসাদ্দেক ৬৭ রান খরচা করেছেন। গ্রাউন্ড ফিল্ডিংটা ছিল এদিন যাচ্ছেতাই। তিনটি ক্যাচ ড্রপের মূল্য দিতে হয়েছে বাংলাদেশকে।
 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন