বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট ২০২২, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯ , ১৩ মুহররম ১৪৪৪

খেলা

লাকি ভেন্যুতে দুর্ভাগা মুশফিক

শামীম চৌধুরী, চট্টগ্রাম থেকে নভেম্বর ২৭, ২০২১, ১২:০৫:৪৪

392
  • আউট হয়ে ফিরছেন মুশফিক। ছবি-বিসিবি

চট্টগ্রাম এক অর্থে মুশফিকুরের লাকি গ্রাউন্ড। এই  ভেন্যুতেই টেস্টের রাজা মুশফিক। মুমিনুলকে টপকে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সর্বাধিক রান সংগ্রাহক এখন মুশফিক (১৮ টেস্টে ১২৮৫ রান, গড় ৪১.৪৫)। এবং এই রেকর্ডটি করেছেন চলমান টেস্টে ।
 টেস্ট ক্যারিয়ারে প্রথম সেঞ্চুরিটি তার দীর্ঘ প্রতিক্ষীত। ৪ বছর ৭ মাস পর দেখেছেন মুশফিক সেঞ্চুরির মুখ। অপেক্ষা করতে হয়েছে তাকে ১৭তম টেস্ট পর্যন্ত। ২০১০ সালের জানুয়ারিতে ভারতের বিপক্ষে সেই সেঞ্চুরির ভেন্যু জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম।

এই ভেন্যু থেকে পেতে পারতেন আরও ৩টি সেঞ্চুরি। তবে লাকি গ্রাউন্ড থেকে কষ্টও কম পেতে হয়নি তাকে। ২০১০ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে উভয় ইনিংসে হাফ সেঞ্চুরির একটিকে পরিণত করতে পারতেন মুশফিক সেঞ্চুরি। কিন্তু ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৫ রানের জন্য হাতছাড়া করেছেন সেঞ্চুরি। ২০১৮ সালে শ্রীলংকার বিপক্ষে ৯২ রানে থেমে যাওয়াও কম কষ্ট দেয়নি মুশফিককে।

টেস্ট ক্যারিয়ারে ৭৬ ম্যাচে ৪ বার নার্ভাস নাইনটিজে কাঁটা পড়েছেন। শাহীন শাহ আফ্রিদিকে থার্ডম্যান দিয়ে বাউন্ডরি শটে সেঞ্চুরির সম্ভাবনার জানান দিয়ে নার্ভাস নাইনটিজের ঘরে আটকে গেছেন মুশফিক। শাহীন শাহ আফ্রিদির জায়গায় ফাহিম আশরাফের হাতে বল তুলে দিয়েই সাফল্য দেখেছেন বাবর আজম। দ্বিতীয় দিন ফাহিম আশরাফের ৫ম ডেলিভারিতে মুশফিক উইকেটের পেছনে দিয়েছেন ক্যাচ (৯১)।

ব্যাটে, না প্যাডে লেগেছে তা নিয়ে সন্দিহান থাকায় রিভিউ নিয়েছিলেন। তবে সেই রিভিউতে লাভ হয়নি। টিভি রিপ্লে'তে দেখা যায় বল যখন মুশফিকের ব্যাট অতিক্রম করছিল তখন তার ব্যাট প্যাডের সঙ্গেও লেগে ছিল। কিন্তু আল্ট্রাএজে স্পাইক দেখা যাওয়ায় ইংলিশ ফিল্ড আম্পায়ার মিচেল গফ-এর সিদ্ধান্ত যথার্থ বলে রায় দিয়েছেন টিভি আম্পায়ার গাজী সোহেল।৩৪৯ মিনিচের ইনিংসে ২২৫ বলে ১১টি চার মেরেছেন মুশফিক।
২০১৩ সালে হারারেতে ৭ রানের কষ্ট বাদ দিলে বাকি তিনবার জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। টেস্টে ৪ বার নাইনটিজে আটকে যাওয়া বাংলাদেশ ব্যাটারদের মধ্যে এর আগে রেকর্ডটা ছিল সাকিবের। সাকিবকে শনিবার স্পর্শ  করেছেন মুশফিক। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নার্ভাস নাইনটিজে কাঁটা পড়ার রেকর্ডে বাংলাদেশ ক্রিকেটারদের মধ্যে সবার উপরে মুশফিক। সব  মিলিয়ে ৮ বার। টেস্টে হোমে এতোদিন সর্বাধিক রানের রেকর্ড ছিল তামিমের (৭০ ইনিংসে ২৬২০ রান)। তামিমের অনুপস্থিতি কাজে লাগিয়ে হোম রেকর্ডে তামিমকে টপকে গেছেন মুশফিক ( ঘরের মাঠে টেস্টে ৭৮ ইনিংসে ২৬৭৩ রান)।
আর মাত্র ১ রান হলেই টেস্টে তামিমকে (৬৪ টেস্টে ৪৭৮৫ রান) টপকে  বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের রেকর্ডটা হয়ে যেতো শনিবার মুশফিকুর রহিমের। তবে লোকাল হিরোকে টপকে যেতে বাড়ছে তার অপেক্ষা।


 

 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন