সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ , ৬ শাওয়াল ১৪৪৫

অন্যান্য
  >
করোনাভাইরাস

দ্রুত করোনা সারাবে মলনুপিরাভির

নিউজজি ডেস্ক ২৪ ডিসেম্বর , ২০২২, ১৫:০৮:৫১

  • দ্রুত করোনা সারাবে মলনুপিরাভির

ঢাকা: করোনার মুখে খাওয়ার ওষুধ মলনুপিরাভির এ রোগে আক্রান্ত রোগীদের দ্রুত আরোগ্যলাভের ক্ষেত্রে বেশ কার্যকর। সম্প্রতি যুক্তরাজ্যে পরিচালিত এক গবেষণা থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

সরকারি একটি গবেষকদলের নেতৃত্বে পরিচালতি এই গবেষণায় অংশ নিয়েছেন ২৫ হাজারেরও বেশি স্বেচ্ছাসেবী। তাদের সবারই বয়স ১৮ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে এবং প্রত্যেকেই করোনার সবচেয়ে সংক্রামক ধরন ওমিক্রনে আক্রান্ত ছিলেন।

তারা যে কেবল করোনায় আক্রান্ত ছিলেন- তা ই নয়, স্বেচ্ছাসেবীদের একটি বড় অংশ অতি অল্প সময়ের মধ্যে গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তির ঝুঁকিতেও ছিলেন।

স্বেচ্ছাসেবীদের সবাইকে দিনে দুইবার মলনুপিরাভির ক্যাপসুল দেওয়ার পাশাপাশি দিনে দুইবার সেই ক্যাপসুল সেবনের পাশাপাশি বাড়িতে অবস্থান করার নির্দেশনা দিয়েছেলেন গবেষকরা। যেহেতু এটি একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণা, তাই এই ট্রায়ালে প্রচলিত চিকিৎসাসেবা দেওয়া রোগীদেরও রাখা হয়েছিল।

ট্রায়াল শেষে দেখা গেছে, যেসব স্বেচ্ছাসেবীকে মলনুপিরাভির ক্যাপসুল দেওয়া হয়েছিল, তাদের সবাই ৫ দিনের মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন। অন্যদিকে, প্রচলিত চিকিৎসাসেবা গ্রহণ করা স্বেচ্ছাসেবীরা আরোগ্য হন ৯ দিন পর।

অর্থাৎ, মলনুপিরাভির ক্যাপসুল যারা সেবন করছেন, তারা অন্যদের চেয়ে চার দিন আগে সুস্থ হয়ে যাচ্ছেন। একই সঙ্গে এ ওষুধ সংক্রমণের মাত্রা কমানোর ক্ষেত্রেও কার্যকারিতা দেখিয়েছে।

তবে করোনা আক্রান্ত রোগীদের দ্রুত সুস্থ করলেও মৃত্যুর হার কমাতে এ ওষুধ কতখানি কার্যকর, তা এখনও স্পষ্ট নয়। অবশ্য বিবিসির এক প্রতিবেদনে অবশ্য বলা বলা হয়েছে, বয়স ও শারীরিক জটিলতার জেরে যেসব করোনা রোগী ব্যাপকমাত্রার মৃত্যুঝুঁকি কিংবা হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার ঝুঁকিতে ছিলেন, তাদেরকেই হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছিল স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে।

বিশ্ববিখ্যাত পিআর রিভিউ চিকিৎসা সাময়িকী ল্যানসেটি প্রকাশিত হয়েছে এই গবেষণা প্রতিবেদন। সেখানে বলা হয়েছে, যুক্তরাজ্যের পুরো জনগোষ্ঠীর জন্য এ ওষুধ উপযোগী হবে না। তবে চরম পরিস্থিতির ক্ষেত্রে এটি যুক্তরাজ্যের জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা কর্তৃপক্ষ ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিসের (এনএইচএস) চাপ কমাতে পারে।

তাছাড়া মার্কিন ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান মের্কের তৈরি মলনুপিরাভির ওষুধটি বেশ ব্যয়বহুলও। ব্রিটেনে এই ওষুধের সাত দিনের কোর্স শেষ করতে খরচ হয় ৫৭৭ পাউন্ড, অর্থাৎ বাংলাদেশি মুদ্রায় ৭১ হাজার ৫২০ টাকা।

যুক্তরাজ্যের ইংল্যান্ডের সাবেক উপপ্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তা এবং নটিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ওষুধ ও স্বাস্থ্যবিজ্ঞান অনুষদের সহ-উপাচার্য জোনাথন ভ্যান-ট্যাম এই ট্রায়াল পরিচালানা পরিষদের অন্যতম সদস্য ও ল্যানসেটে প্রকাশিত প্রতিবেদনটির সহ-লেখক।

বিবিসিকে তিনি জানান, আগেকার গবেষণাগুলোতে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার ঝুঁকি কমাতে মলনুপিরাভিরের কার্যকারিতা দেখা গেলেও যাদের নমুনা হিসেবে নেওয়া হয়েছিল, তারা টিকা নেওয়া ছিলেন না। তবে সাম্প্রতিক গবেষণাটি চালানো হয়েছে টিকা নেওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে।

‘টিকার সুরক্ষা এতটাই বেশি যে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের হাসপাতালে ভর্তি কিংবা মৃত্যুহার কমাতে মলনুপিরাভির ওষুধের বাড়তি কার্যকারিতা দেখা যায়নি। তবে আক্রান্ত রোগীরা এ ওষুধ সেবন করলে শরীর থেকে উপসর্গ এবং ভাইরাস দূর হওয়ার সময় কমে আসে,’ বিবিসিকে বলেন জোনাথন ভ্যান-ট্যাম।

করোনা মাহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে এ রোগের দৈনিক সংক্রমণ-মৃত্যুর পাশাপাশি আরও একটি সমস্যার মোকাবিলা করতে হচ্ছে ব্রিটেনের স্বাস্থ্য বিভাগকে। সেই সমস্যার নাম দীর্ঘ কোভিড, অর্থাৎ করোনা নেগেটিভ হওয়ার দীর্ঘদিন উপসর্গ অনুভব করা। গত আড়াই বছরে যুক্তরাজ্যে যারা করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর সেরে উঠেছেন, তাদের মধ্যে অনেকেই এই শারীরিক সমস্যায় ভুগছেন।

দীর্ঘ কোভিড মোকাবিলার ক্ষেত্রে মলনুপিরাভির কোনো কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে কি না জানতে আরও অপেক্ষা করতে হবে বলে বিবিসিকে জানিয়েছেন জোনাথন।

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন