মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ , ৪ জিলকদ ১৪৪২

জীবনযাত্রা
  >
অন্যান্য

একটু একটু করে ফুটপাতে শীত

নিউজজি ডেস্ক ৮ নভেম্বর , ২০১৮, ১৩:৩২:০৪

  • একটু একটু করে ফুটপাতে শীত

সকালের দিকে মনে হচ্ছে, শীতকালের মধ্যে ঢুকে যাচ্ছি আমরা অথবা আমাদের মধ্যে ঢুকে যাচ্ছে শীতকাল। আর শীত মানেই উষ্ণতার অন্যতম অনুষঙ্গ শীতের পোশাক। শীতের পোশাক কেনার সবচেয়ে সাধ্যের ঠিকানা রাজধানীর ফুটপাত বা উন্মুক্ত ভ্যানে রাখা শীতবস্ত্রের দোকান। ইতোমধ্যে জমজমাট এই মৌসুমি বাজার। 

দোকান গুলোতে নিম্মবিত্ত থেকে শুরু করে প্রায় মধ্যবিত্ত পরিবারের ক্রেতারা প্রতিনিয়ত ভীড় করেন। কারণ মৌসুমের শুরুতেই শীত পড়তে শুরু করাই ক্রেতাদের উপচে পড়া ভীড় হচ্ছে এই দোকান গুলোতে। গত কয়েক দিন ধরে শীত পড়তে থাকায় প্রচন্ড শীত থেকে মানুষ একটু গরম পাওয়ার আশায় আগে ভাগেই ভীড় জমাচ্ছে বড় দোকান থেকে শুরু করে ফুটপাতের দোকান পর্যন্ত। ক্রেতাদের মনোযোগ আকর্ষনে হরেক রকম বাহারী পোশাকের পসরা সাজিয়ে বসেছেন দোকানীরা। এখানের দোকান গুলোতে পুরনো সব রকমের পোশাকের কদর বেশী। পুরনো এসব পোশাক যথেষ্ট সস্তা এবং বেশ শীত নিবরণদায়ক বলে অনেকের ধারণা।  

রাজধানীর সদরঘাট, মতিঝিল, পুরানো পল্টন বায়তুল মোকারম মসজিদের সামনে, নীলক্ষেত, খিলক্ষেত, নিউমার্কেট, মৌচাক, মালিবাগ, ফার্মগেইট, মিরপুর, গাবতলী, সায়েদাবাদ, যাত্রাবাড়ি, শনির আখড়া, বাড্ডা, রামপুরাসহ বেশ কিছু স্থানে শীতের পোশাক বিক্রি করা হয়। এছাড়াও ফুটপাতের বিভিন্ন জায়গায় খণ্ডকালীন শীত পোশাক বিক্রি করেন হকাররা।

রাজধানীর ফুটপাতে বা হকার্স মার্কেটে কম টাকায় চকচকে যে পোশাকটি কিনে নিচ্ছেন আপনি, সেটি কি নতুন না সেকেন্ড হ্যান্ড বোঝার উপায় নেই। ব্যবসায়ীরা বলছেন, হকার্স বা ফুটপাতের কোন শীতের পোশাকই নতুন নয়। ৯০ শতাংশ পোশাক আছে দেশের বাহির থেকে। তাইয়ান, ফিলিপাইন, চায়না, হংকং, জাপান, সৌদি আরব, কুয়েত, ইতালি, যুক্তরাষ্ট্র, থাইল্যান্ডসহ আরো অনেক দেশ থেকে আসে এই পোশাক। তাদের ব্যবহৃত পোশাকটি ড্রাইওয়াশ করে বাংলাদেশে নিয়ে আসে একশ্রেণির হকার। চট্টগ্রাম বন্দরে খালাস হওয়ার পরে পাইকারি বাজারের মাধ্যমে হকার হয়ে এই পোশাক চলে আসে ক্রেতার হাতে। 

রাজধানীর ফুটপাতে প্রায় ১০ হাজার শীত পোশাক বিক্রেতা রয়েছে। প্রতিদিন সকালে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে পাইকারি বা নিলামের মাধ্যমে বিক্রি হয় শীত পোশাক। নিলামের মাধ্যমে ১০ হাজার, ১৫ হাজার, ২০ হাজার টাকা ধরে প্রতিগাইট শীতবস্ত্র ক্রয় করেন হকাররা। প্রতি গাইটে ৪০০ থেকে ৫০০টি কাপড় থাকে। সেগুলো বাচাই করে ভালোগুলো বিক্রির জন্য প্রদর্শন করা হয়। 

শীতের পোশাকের মধ্যে সুয়েটার, মাপলার, কানটুপি, হাতমোজা, মোজা, ট্রাউজার, ব্লেজার, মোটা কামিজ, কম্বল, চাদর, মোটা কাঁথা, মোটা মালসি, গিলাপ, হুইলবেড কাভার ইত্যাদি। সর্বনিম্ন ১০০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১০০০ টাকা পর্যন্ত সোয়েটার জাতীয় মোটা কাপড় পাওয়া যাবে। কাঁথা, কম্বল, গিলাপ, বেডকাভার আর মোটা কামিজ সর্বনিম্ন ৩০০ টাকা থেকে ৪০০০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাবে। তবে কোর্ট বা ব্লেজারের সাইজ ও কাপড় অনুযায়ী দাম পড়বে ৫০০ থেকে ১০০ টাকা।

শীতের পোশাকের সাথে ফ্যাশনের একটা ভালো আত্মীয়তা আছে। ফলে অযথা উচ্চমূল্যে প্রতি বছর শীতের কাপড় কেনার চেয়ে সাধ্যের মধ্যে কেনাই শ্রেয়। 

ছবি – মীর ইসলাম । 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers