সোমবার, ২১ জুন ২০২১, ৬ আষাঢ় ১৪২৮ , ১০ জিলকদ ১৪৪২

জীবনযাত্রা

ব্যাঙের ছাতার পুষ্টিগুণ

নিউজজি ডেস্ক মে ১০, ২০২১, ১২:৩৫:৩১

  • ব্যাঙের ছাতার পুষ্টিগুণ

ঢাকা : কেউ বলে ব্যাঙের ছাতা, কেউ মাশরুম, আবার কেউ বলে ভূঁইছাতা, কোড়ক ছাতা, ছত্রাক, পলছত্রাক, ভুঁইছাতি, ছাতকুড় প্রভৃতি নামে পরিচিত। যে যেরকম নামেই ডাকুক, এ বড় অমূল্য সম্পদ। 

ঔষধি গুনাগুন  

মাংসের মত পৌষ্টিক গুনযুক্ত, কামবর্ধক ও মৃদু বিরেচক। এই ছত্রাক থেকে নানাপ্রকার ভিটামিন, ঔষধ, বাণিজ্যিক দ্রব্যও তৈরী হয়। 

কোষ্ঠবদ্ধতায়

দু’একদিন অন্তর অন্তর দাস্ত হয়, মল গুটলে গুটলে, দাস্ত পরিস্কার হবার ঔষধ খেলে ২/১দিন ভাল হলো, তারপর যেইকে সেই, সেক্ষেত্রে ভাজা ছাতু আন্দাজ ২৫ গ্রাম মাত্রায় দিনে ২ বার করে ভাতের সঙ্গে বা অন্য যেকোন সময়ে ৫/৭ দিন খেলে ওটা চলে যায়। তবে মাঝে মাঝে খেয়ে রাখলে খুব ভাল হয়।

আমাশয়

সাদা আমাশা, কখনো শক্ত মলের সঙ্গে জড়িয়ে থাকে, দাস্ত পাতলা হলে তার সঙ্গে থোকা থোকা আমও পড়ে, এক্ষেত্রে ভাজা ছাতু বা ছাতা আন্দাজ ২৫ গ্রাম মাত্রায় নিয়ে দিনে ২ বার করে খেতে হবে। এটি ব্যবহারকালীণ আমাশা বৃদ্ধিকারক কোন দ্রব্য, যেমন পুঁইশাক, গুরুপাক দ্রব্য, অতিরিক্ত শাক বা তরকারী খাওয়া চলবে না। এভাবে নিয়ম মেনে ১০/১৫ দিন খেলে আমাশা চলে যায়। 

দৌর্বল্যে

রোগান্তিক দুর্বলতা অর্থাৎ কোন রোগভোগের পর দুর্বলতা বা অপুষ্টিজনিত দুর্বলতা যেটাই হোক না কেন, এ অবস্থায় ভাজা ছাতু ২৫ গ্রাম মাত্রায় দিনে ২ বার করে খেতে হবে। খাওয়ার পর এক কাপ করে গরম দুধ খাওয়া দরকার। মাসখানিক খেলে অবস্থার পরিবর্তন হবে। 

সন্তোগশক্তির স্বল্পতায়

এটি বার্ধক্যের শেষ এসে দেখা দিলে তখন অবশ্য করার কিছুই নাই। যৌবনে ও প্রৌঢ়াবস্থায় এই শক্তির অভাব হলে মানসিক অস্বাচ্ছন্দ্যবোধের জন্ম হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে ভাজা ছাতু বা ছাতা ২৫ গ্রাম মাত্রায় দিনে ২ বার করে কিছুদিন খেতে হবে। ২/৩ মাস খেলে চমৎকার কাজ হয়ে থাকে। দাঁতের মাড়িতে লাগালে মুখক্ষত ও অতিরিক্ত লালাস্রাব চলে যায়। রক্তবোধক হিসেবেও ব্যবহার্য। অতিসার ও আমাশাতে আভ্যন্তরীন ব্যবহার হয়ে থাকে। 

তথ্য ও ছবি – ইন্টারনেট 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers