শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ , ১০ শাওয়াল ১৪৪৫

ফিচার
  >
মানচিত্র

প্রাচীন বিহারের পথে পথে

নিউজজি ডেস্ক ২ আগস্ট , ২০২০, ০০:২৮:৩১

3K
  • প্রাচীন বিহারের পথে পথে

ঢাকা :বিহার ভ্রমণ এবং পর্যটন রাজ্যের বিভিন্ন অংশে বিক্ষিপ্ত বহু সংখ্যক পর্যটক গন্তব্যের প্রস্তাব দেয়। পূর্ব গাঙ্গেয় সমভূমি বরাবর এটি উত্তর ভারতে অবস্থিত। বৌদ্ধধর্ম ও জৈনধর্মের জন্মভূমি হওয়ায় বিহার ভারতের সাংস্কৃতিক ইতিহাসের একটি উল্লেখযোগ্য স্থান। পর্যটকরা এই স্থানে কিছু চমৎকার মুঘল ও হিন্দু স্থাপত্য দেখতে পাবেন। 

বিহার একটি সমৃদ্ধ প্রাচীন সভ্যতার দোলনা ছিল, একটি উপকেন্দ্র যেখানে জৈন ও বৌদ্ধ ধর্মের মত ভারতের কিছু অন্যতম প্রধান ধর্মের উৎপত্তি ঘটে এবং হিন্দুধর্ম গতি লাভ করে। এই রাজ্যের নাম ‘বিহার’ থেকে উদ্ভুত হয়েছে, যার অর্থ হল বৌদ্ধ মঠ, কারণ অতীতে এই স্থান বৌদ্ধ ধর্মের একটি প্রধান প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ছিল। বিহারের প্রাচীনত্ব ষষ্ঠ শতাব্দী খ্রিস্টপূর্বাব্দ পুরনো। এইখানেই বৈশালীতে ভগবান মহাবীর জন্মগ্রহণ করেন এবং প্রভু বুদ্ধ বোধগয়ায় বোধি বৃক্ষের নিচে ‘জ্ঞানলাভ’ করেন।

এই ভূমি বহু রাজবংশের উত্থান এবং পতন দেখেছে; যেমন – গুপ্ত, পাল ও পরবর্তীকালে মুসলিম শাসন। পবিত্র গঙ্গা নদী, এই রাজ্যের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়ে এই রাজ্যকে দুই ভাগে বিভক্ত করেছে। এটি জমিকে উর্বর ও ফলনশীল করে তোলে। বিহারের ভূগর্ভস্থ খনিজ পদার্থ জাতীয় সম্পদ সৃষ্টিতে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখে। 

বিহার একটি সুপরিচিত তীর্থ কেন্দ্র। এক বৃহৎ সংখ্যক বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী গন্তব্যের ফল স্বরূপ এটি তাদের জন্য একটি তীর্থকেন্দ্রে পরিণত হয়েছে যারা পুরানো ধ্বংসাবশেষ এবং প্রাচীন ধর্মীয় লিপির টানে বিহারে আসেন।বহু সংখ্যক লোক হিন্দু এবং জৈনদের পবিত্র স্হানসমূহের আকর্ষণে বিহার ভ্রমণে আসে। জনপরিসংখ্যান অবস্থান ভারতের পূর্বাঞ্চলে উত্তরে নেপাল পূর্ব দিকে পশ্চিমবঙ্গ পশ্চিমে উত্তর প্রদেশ এবং মধ্য প্রদেশ দক্ষিণে উড়িষ্যা। 

সুবিধাজনকভাবে ভারতের পূর্ব অংশে অবস্থিত, বিহার একটি স্থলবেষ্টিত রাজ্য, যেখানে ভারতের যে কোন অংশ থেকে সহজেই পৌঁছানো যায়। বিহার বিমান, সড়ক ও রেলপথের একটি জালবিন্যাসের সাথে ভারতের বাকি অংশের সাথে সুসংযুক্ত।বিহারের রাজধানী শহর পাটনায় একটি বিমানবন্দর আছে যা দিল্লি, মুম্বাই, লক্ষ্ণৌ, কলকাতার সাথে বিমান দ্বারা সুসংযুক্ত।

এছাড়া নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুও পাটনার সাথে নিয়মিত বিমান দ্বারা সুসংযুক্ত। ভারতের প্রধান বিমানসংস্থাগুলি, যেমন – ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্স, স্পাইস জেট,জেট এয়ারওয়েজের, ইন্ডিগো এয়ারলাইন্স এবং অন্যান্য বহু বিমানসংস্থা পাটনা থেকে নিয়মিত আসা যাওয়ার বিমান চালনা করে। 

রাজ্যের মধ্যে বহু সংখ্যক মুখ্য ও গৌণ স্থান গুলি ভারতীয় রেলওয়ের রেল পরিষেবা দ্বারা সুসংযুক্ত। এমনকি এই রাজ্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ অতি দ্রুত ট্রেন দ্বারা পরিষেবিত, যেমন – রাজধানী এক্সপ্রেস এবং শতাব্দী এক্সপ্রেস। বহু সংখ্যক জাতীয় সড়কের একটি বিস্তৃত জালবিন্যাস, যেমন – জাতীয় সড়ক নং ২-নং জাতীয় সড়ক, ২৩-নং জাতীয় সড়ক, ২৮-নং জাতীয় সড়ক, ৩০-নং জাতীয় সড়ক, ৩১-নং জাতীয় সড়ক এবং ৩৩-নং জাতীয় সড়ক এবং রাষ্ট্রীয় মহাসড়কগুলি এই রাজ্যের মধ্য দিয়ে গিয়েছে, যা সারা ভারত জুড়ে গুরুত্বপূর্ণ শহরগুলির সাথে সংযুক্ত। 

এখানে বিশ্বের প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপিত হয়। যার ধ্বংসাবশেষ বিহারের এক অন্যতম পর্যটন আকর্ষণ। বৌদ্ধ ধর্মের কিছু পবিত্র স্থান এখানে অবস্থিত। এছাড়াও হিন্দু, শিখ এবং জৈন ধর্মের কিছু গুরুত্বপূর্ণ স্থান এখানে অবস্থিত। 

বিহারের দর্শনীয় স্থান বিহারের দর্শনীয় স্থানগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল – প্রেতশিলা পাহাড়। আহিরাউলি। হাসানপুর। চম্পারণ। রামচুরা। মানের শরিফ। রাজগির। বাল্মীকি নগর। পাবাপুরী। তাড় রামায়ণ, ইত্যাদি। 

ছবি ও তথ্য – ইন্টারনেট 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন