সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮ , ১৮ সফর ১৪৪৩

ফিচার
  >
মানচিত্র

সাবিয়ানদের দেশ ইয়েমেন

নিউজজি ডেস্ক ২১ মে , ২০২০, ০১:৫৬:৪৯

3K
  • সাবিয়ানদের দেশ ইয়েমেন

ঢাকা: ইয়েমেন মধ্যপ্রাচ্যের একটি দেশ। এটি আরব উপদ্বীপের দক্ষিণ-পশ্চিম প্রান্তে অবস্থিত। ইয়েমেনের জনসংখ্যা অল্প। দেশের অর্ধেকের বেশি অংশ বসবাসের অযোগ্য। সানা’আ ইয়েমেন প্রজাতন্ত্রের রাজধানী ও বৃহত্তম শহর। এই নগরিতে ১০৩টি মসজিদ, ১৪টি হাম্মাম এবং ৬,০০০ এর বেশি বহুতল ভবন রয়েছে। এই বহুতল ভবনগুলোর অনন্য স্থাপত্য, দামী সুশোভিত কাঁচের জানালা একে দর্শনীয় করে তুলেছে। দেশের উত্তর ও উত্তর-পূর্বে সৌদি আরব এবং পূর্বে ওমান অবস্থিত। ইয়েমেনের আয়তন ৫,২৭,৯৭০ বর্গকিমি।

ইয়েমেনে পর্যটকদের জন্য অনেক আকর্ষণীয় স্থান আছে। ইয়েমেনের ২ কোটি জনগণের বেশির ভাগই ইয়েমেনী আরবি ভাষায় কথা বলেন। প্রতিবছর ইয়েমেনের লোহিত সাগর পাড়ি দেয় লাখো মানুষ। এটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। কখনো কখনো ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রীবহন করতে গিয়ে নৌকা ডুবে যায়। অবৈধভাবে মধ্যপ্রাচ্য বা ইউরোপ যেতে ইচ্ছুক অনেকেই ইয়েমেনকে প্রবেশপথ বলে বিবেচনা করে। গত পাঁচ বছরে পাঁচ লাখ মানুষ সাগর পাড়ি দিয়ে বিপৎসংকুল পথে ইয়েমেন পৌঁছেছে।

ইয়েমেন বিশ্বের সবচে’ প্রাচীন সভ্যতাগুলোর একটি। বিশ্বের সবচে’ ভালো এবং দামী মধু বলে পরিচিত ‘দোয়ানি মধু', এটা ইয়েমেনে পাওয়া যায়। ইয়েমেনে অবস্থানরত সাংবাদিক অ্যাডাম ব্যারন তার ব্লগে বলেছেন: ইয়েমেনীরা নিয়ম করেই যেন বন্ধুবৎসল ও আপন করে নেয়। ইয়েমেনে সাধারণত ঘরে তৈরি রুটি আর পাথরের বাসনকোসনে তরকারি রান্না করা হয়। ইয়েমেনের উত্তরাঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী নাচের নাম হলো বারা।

তিহামাহ পশ্চিম উচ্চভূমির ঢালে হঠাৎ করেই শেষ হয়ে গেছে। এই এলাকায় বছরে একশ’ মিলিমিটার থেকে এক হাজার মিলিমিটার পর্যন্ত বৃষ্টিপাত হয়। দেশের খাদ্য চাহিদা মেটাতে এখানে ব্যাপকভাবে চাষাবাদ করা হয়। এখানে দিনের বেলা গরম তবে রাতে তাপমাত্রা ব্যাপকভাবে নেমে যায়।

মধ্যাঞ্চলীয় উচ্চভূমি একটি বিস্তৃত উঁচু উপত্যকা যার উচ্চতা ২ হাজার মিটার। এই এলাকা পশ্চিম উচ্চভূমির চেয়ে বেশি শুষ্ক। তবে বর্ষাপ্রবণ বছরগুলোতে এখানে ব্যাপক চাষাবাদের জন্য পর্যাপ্ত পানি পাওয়া যায়। পানি ঘাটতি হলে এখানে সেচ দিয়ে গম ও বার্লি উৎপাদন করা হয়। সানা এই এলাকায় অবস্থিত। ইয়েমেনের সর্বোচ্চ স্থান জাবাল আন নবী শুয়াইব যার উচ্চতা ৩ হাজার ৬৬৬ মিটার। পূর্বে রাব আল খালি মরুভূমির ইয়েমেনি অংশ বেশ নিচু এবং এখানে প্রায় কোন বৃষ্টিপাতই হয় না। উট চরানো বেদুইনরাই এখানকার একমাত্র বাসিন্দা।

ইয়েমেনের উদ্ভিদ জগৎ খুবই বৈচিত্র্যময়। এখানকার উদ্ভিদ জগতে গ্রীষ্মম-লীয় আফ্রিকান, সুদানি উদ্ভিদ ভৌগোলিক অঞ্চল এবং সাহারো-আরবীয় অঞ্চলের গাছপালার একটা সংমিশ্রণ লক্ষ্য করা যায়। পশ্চিমাঞ্চলীয় পর্বতমালা এবং উচ্চ সমভূমিগুলোর একাংশে সুদানি প্রাধান্য রয়েছে, কেননা এই অঞ্চলে তুলনামূলকভাবে বেশি বৃষ্টিপাত হয়। সাহারো-আরবীয় গাছপালার প্রাধান্য লক্ষ্য করা যায় উপকূলীয় সমভূমি, পূর্বাঞ্চলীয় পর্বত এবং পূর্ব ও উত্তরাঞ্চলীয় মরু সমভূমিতে। ইয়েমেনি গাছপালার একটা বিরাট অংশ সুদানী অঞ্চলের গ্রীষ্মম-লীয় আফ্রিকান গাছপালার মতো।

ইয়েমেন এককালে সাবিয়ানদের (বাইবেল অনুযায়ী শেবা) আবাসভূমি ও বাণিজ্যিক রাষ্ট্র ছিল। রাষ্ট্রটি এক হাজার বছর ধরে সুনামের সাথে টিকেছিল। সে সময় সম্ভবত আধুনিক কালের ইথিওপিয়া ও ইরিত্রিয়ার বহু অংশ এই রাষ্ট্রের অংশ ছিল। ২৭৫ খ্রিষ্টাব্দে এই অঞ্চল ইহুদি-প্রভাবিত হিমিয়ারা রাজ্যের শাসনাধীনে চলে যায়। চতুর্থ শতাব্দীতে এখানে খ্রিষ্টধর্ম পৌঁছে। এখানে তখন আগে থেকেই ইহুদি ধর্ম ও স্থানীয় পৌত্তলিকতা প্রতিষ্ঠিত ছিল। সপ্তম শতাব্দীতে এই অঞ্চলে দ্রুত ইসলাম ধর্ম বিস্তার লাভ করে এবং ইয়েমেনি সৈন্যরা ইসলামের প্রাথমিক বিজয়ের সম্প্রসারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। নবম শতাব্দী থেকে ষোড়শ শতাব্দী পর্যন্ত ইয়েমেনে বেশ কয়েকটি রাজবংশের আবির্ভাব ঘটে, সেগুলোর মধ্যে রাসূল রাজবংশ ছিল সবচেয়ে বলিষ্ঠ ও সমৃদ্ধশালী। বিংশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে দেশটি উসমানীয় ও ব্রিটিশ সাম্রারাজ্যের মধ্যে বিভক্ত হয়ে যায়। প্রথম বিশ^যুদ্ধের পর উত্তর ইয়েমেনে ইয়েমেন জাইদি মুতাওয়াক্কিল রাজ্য প্রতিষ্ঠা করা হয়। এরপর ১৯৬২ সালে ইয়েমেন আরব প্রজাতন্ত্র সৃষ্টি করা হয়। দক্ষিণ ইয়েমেন ১৯৬৭ সাল পর্যন্ত এডেন আশ্রিত রাজ্য নামে ব্রিটিশ আশ্রয়ে থেকে যায়। ১৯৯০ সালে দুই ইয়েমেনি রাষ্ট্র একীভূত হয়ে আধুনিক ইয়েমেন প্রজাতন্ত্র গঠন করে।

ইয়েমেন একটি উন্নয়নশীল দেশ এবং মধ্যপ্রাচ্যের সবচেয়ে গরিব দেশ। দেশটিতে ২০১১ সালে আরব বসন্ত বা গণজাগরণের পর থেকে রাজনৈতিক সঙ্কট চলছে। দারিদ্র্য, বেকারত্ব, দুর্নীতি এবং প্রেসিডেন্ট সালেহের সংবিধান সংশোধন পরিকল্পনা এবং তার আজীবনের প্রেসিডেন্ট হওয়ার চেষ্টায় প্রেসিডেন্টের ক্ষমতার মেয়াদ বাতিলের প্রতিবাদে রাস্তায় প্রতিবাদ বিক্ষোভের মধ্য দিয়ে এই সংকট শুরু হয়। অতঃপর, চাপের মুখে প্রেসিডেন্ট সালেহ পদত্যাগ করেন এবং প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা ভাইস প্রেসিডেন্ট আব্দ রাব্বুহ মনসুর হাদির কাছে হস্তান্তর করা হয়। হাদি ২০১২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি একক প্রার্থীর নির্বাচনে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন।

কিন্তু শিয়া মতাবলম্বী হুথি, আলকায়দা ও আল ইসলাহের মধ্যে সংঘাতের কারণে ক্ষমতার উত্তরণপ্রক্রিয়া বিঘ্নিত হয়। ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে হুথিরা সানা দখল করে এবং পরে তারা এক অভ্যুত্থানের মধ্যে দিয়ে নিজেদেরকে সরকারের নিয়ন্ত্রণে থাকার ঘোষণা দেয়। এরপর সৌদি আরব ইয়েমেনে হস্তক্ষেপ করে কিন্তু তাতে গৃহযুদ্ধ থামেনি।

এক নজর-

দেশের নাম: ইয়েমেন

মহাদেশ: আফ্রিকা

সরকারী নাম: রিপাবলিক অফ ইয়েমেন

রাজধানী: সানা

রাষ্ট্র ভাষা: আরবী

জায়গার পরিমান: ৫,৫৫,০০০ বর্গকিলোমিটার

স্বাধীনতা দিবস: ২২ মে ১৯৯০

মুদ্রা: ইয়েমেনি রিয়াল

সূত্র : ইন্টারনেট

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
        
copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers