শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১ আশ্বিন ১৪২৮ , ৮ সফর ১৪৪৩

ফিচার
  >
মানচিত্র

শত শত ক্যাসেল আর গুহার দেশ স্লোভাকিয়া

নিউজজি ডেস্ক ২০ মার্চ , ২০১৯, ১২:৩৫:৩৯

  • শত শত ক্যাসেল আর গুহার দেশ স্লোভাকিয়া

বজনিক নামে দৃষ্টিনন্দন একটা প্রাসাদ আছে সে দেশে।  যেন শিল্পীর আঁকা কোনো ছবি। এক নজর দেখলেই মনে পড়বে প্রাসাদটি আপনার অপরিচিত নয়। কারণ টেলিভিশন স্ক্রিনে কিংবা থিয়েটারে এই রাজপ্রাসাদ আপনি অনেকবার দেখেছেন। অনেকগুলো বিখ্যাত সিনেমার শুটিং হয়েছে এই রাজপ্রাসাদে। এর মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত সিনেমা হলো ইতালিয়ান ফ্যান্টাসি মুভি ‘ফান্তাগিরো’। প্রথমদিকে এ দুর্গটি কাঠ দিয়ে তৈরি হয়েছিল। পাহাড়ের উপর বৃক্ষরাজি দিয়ে ঘেরা কাঠের প্রাসাদটিও ছিল অসাধারণ। স্লোভাকিয়ার বজনিক শহরে একটি পাহাড়ের উপর প্রাসাদটি নির্মাণ করা হয়। আমাদের আজকের আয়োজন সেই স্লোভাকিয়া দেশ নিয়েই। 

মধ্য ইউরোপের স্থলবেষ্টিত দেশ স্লোভাকিয়া। এর পশ্চিমে চেক প্রজাতন্ত্র, উত্তরে পোল্যান্ড, পূর্বে ইউক্রেন, দক্ষিণে হাঙ্গেরি ও দক্ষিণ-পশ্চিমে অস্ট্রিয়া।

দশম শতাব্দী থেকে ১৯১৮ সাল পর্যন্ত হাঙ্গেরির অংশ ছিল স্লোভাকিয়া। ১৯১৮ সালে এটি চেক অঞ্চল বোহেমিয়া ও মোরাভিয়ার সঙ্গে মিলিত হয়ে ও সাইলেসিয়ার একটি ক্ষুদ্র অংশ নিয়ে চেকোস্লোভাকিয়া গঠন করে। ১৯৩৯ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরুর কিছুদিন আগে জার্মান স্বৈরশাসক অ্যাডলফ হিটলারের চাপে দেশটি স্বাধীনতা ঘোষণা করে। ১৯৪৫ সালে আবার এটি চেকোস্লোভাকিয়ার সঙ্গে মিলিত হয়। ১৯৪৮ থেকে ১৯৮৯ সাল পর্যন্ত চেকোস্লোভাকিয়ার ক্ষমতায় ছিল সোভিয়েত-সমর্থিত সরকার। ১৯৯৩ সালে দেশটি চেক প্রজাতন্ত্র ও স্লোভাকিয়ায় বিভক্ত হয়ে যায়। 

স্লোভাকিয়া ২১ ডিসেম্বর ২০০৭ সালে নিজেকে সেনজেন এরিয়ার সদস্য দেশ হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করে এবং ১ মে ২০০৪ সালে দেশটি ই ইউ অধিভুক্ত হয়। চেকোস্লোভাকিয়া ভেঙ্গে যাবার কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল এই দেশটি কেননা, মূলত উন্নত শিল্প কারখানাগুলি চেক প্রজাতন্ত্রে ছিল। সে তুলনায় স্লোভাকিয়াতে কিছুই ছিল না। তারপরেও দেশ বিভাগের পর নিজেদেরকে তারা আরও প্রত্যয়ী হিসাবে গড়ে তোলে এবং দেশকে পুনঃ-প্রতিষ্ঠার জন্য সরকারি  বেসরকারিভাবে স্লোভাকিয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়। যার ফলশ্রুতিতে দেশের অর্থনীতিতে বিদেশী বিনিয়োগকারীরা আকৃষ্ট হয় এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের মধ্যে স্লোভাকিয়া হল সর্বোচ্চ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির এক নিদর্শন।

ছোট একটি দেশ স্লোভাকিয়া যেখানে প্রায় ২০০ টি ক্যাসেল রয়েছে। এই সকল ক্যাসেল দেখার জন্য পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে মানুষ ভিড় জমায়। আয়তনের দিক থেকে বিবেচনা করলে স্লোভাকিয়ার ক্যাসেল এর সংখ্যা অন্যান্য দেশের চাইতে বেশি।

দেশটির অফিসিয়াল নাম হচ্চে স্লোভাক রিপাবলিক। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অনন্য লীলাভূমি যা পাহাড়, ক্যাসেল এবং গুহায়   পরিবেষ্টিত। ইউরোপের ভিতরে সবচেয়ে বেশি গুহার সন্ধান পাওয়া গিয়েছে স্লোভাকিয়ায়। ভ্রমণ পিপাসু এবং এডভেঞ্চার যারা পছন্দ করে তাদের জন্য এই ধরনের গুহা সত্যি নতুন কিছু দেখার ব্যাপার এনে দিবে। এখানে প্রায় ৬০০০ এর মত গুহা রয়েছে এর মধ্যে কিছু গুহা ইউনেস্কোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজের তালিকাভুক্ত। স্লোভাকিয়ার গুহাগুলোর  এতটাই সৌন্দর্য যে,  এসবের জন্য পৃথিবীর স্বর্গ হিসাবে বিবেচনা করা হয়।

যানবাহন নিয়ে স্লোভাকিয়ায় মজার একটি বিষয় রয়েছে। ইউরোপের ভিতর একমাত্র দেশ যেখানে ছাত্র, সিনিয়র সিটিজেন এবং শিশুরা বিনামূল্যে ট্রেনে চলা ফেরা করতে পারে এবং সুযোগ শুধু স্লোভাকিয়ানরা পায় না, ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিটি সদস্য দেশের জনগণ এর আওতায় যেখানে ইউরোপের অন্যান্য দেশে ছাত্র,  সিনিয়র সিটিজেন এবং শিশুদের ট্রেন টিকেটে শুধুমাত্র ডিসকাউন্ট দেয়া হয়। স্লোভাকিয়া বিভিন্ন পণ্য সামগ্রী মেনুফেকচার করে এর ভিতরে গাড়ী অন্যতম। গত বছর ১ মিলিয়ন গাড়ী তৈরি করেছে দেশটি।

স্লোভাকিয়ায় ঘুরতে গেলে চারপাশের সবই সুন্দর মনে হবে। যেতে পারেন স্টারি স্মোকোহভেক। এ শহরটি স্কিয়িং এবং হাইকিং-এর জন্য বিশেষ পরিচিত। টাট্রা পর্বতমালায় ঘেরা এ শহরটি থেকে পর্বতের এক অদ্ভুত সুন্দর দৃশ্য দেখা যায়। পর্বতের শীর্ষ চূড়া ২,৪৫২ মিটার উঁচু যা স্লোভাকিয়ার ৪র্থ সর্বোচ্চ স্থান। চূড়ায় আরোহণ করতে সাধারণত চার থেকে সাড়ে চার ঘণ্টা সময় লাগে। শীতকালে সম্পূর্ণ বরফাচ্ছাদিত স্টারি স্মোকোহভেক ভ্রমণের জন্য বেশ আকর্ষণীয়। 

আর স্লোভাকিয়া গিয়েই রাজধানী শহর ব্রাতিস্লাভা তো রয়েছেই। ভুবনবিখ্যাত নদী দানিয়ুব। সেই দানিয়ুবের পাশে গিয়ে নির্মল বাতাসের সঙ্গী হয়ে কাটানো যায় বিকেল সন্ধ্যা অথবা পূর্ণিমার রাত। অথবা এই শহরের কোনও উৎসবের দিনক্ষণে সুন্দরীদের পরিবেশনাতেও মুগ্ধতায় আচ্ছন্ন হতে পারেন। 

ছবি ও তথ্য – ইন্টারনেট 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
        
copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers