সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮ , ১৮ সফর ১৪৪৩

ফিচার
  >
মানচিত্র

রোমানিয়া, ডেল্টা নদীর ধারে সবুজ আর বরফের দেশ

নিউজজি ডেস্ক ১৮ ডিসেম্বর , ২০১৮, ১১:৩৯:৫৩

18K
  • রোমানিয়া, ডেল্টা নদীর ধারে সবুজ আর বরফের দেশ

উঁচু উঁচু পাহাড়। পাহাড়ের ভাঁজে ভাঁজে তুষারের মুকুট। যেন বরযাত্রী সকলেই। ভীষণ শীতে থরথর পাথুরে পাহাড়ের তলেই আবার বিস্তৃত জলাধার। ঠাণ্ডা সেই জলে স্বচ্ছ নীল আকাশের ছায়া। বলকান উপদ্বীপে অবস্থিত এই বিচিত্র সুন্দর দেশের নাম রোমানিয়া। 

দক্ষিণ-পূর্ব ইউরোপের একটি রাষ্ট্র। দেশটির উত্তর-পূর্বে রয়েছে ইউক্রেন ও মোলদোভা, পশ্চিমে হাঙ্গেরি এবং সার্বিয়া, দক্ষিণে বুলগেরিয়া ও দানিউব নদী। রোমানিয়ার পূর্বদিকে রয়েছে কৃষ্ণ সাগর, আর কার্পেথিয়ান পর্বতমালার পূর্ব ও দক্ষিণাংশ রোমানিয়ার মধ্যভাগে অবস্থিত। রাজধানীর নাম বুখারেস্ট। রোমানিয়া  ইউরোপীয় ইউনিয়নের নবম বৃহত্তম আয়াতনের দেশ । এর আয়াতন হল ২৩৮.৪০০ বর্গ কিলোমিটার (৯২,০০০ বর্গ মাইল) । রোমানিয়ার জনসংখ্যার ১৯ মিলিয়ন এর উপর । রোমানিয়ার রাজধানী বুখারেস্ট ইউরোপীয় ইউনিয়নের দশম বৃহত্তম শহর যাতে প্রায় ২ মিলিয়ন বা ২০ লাখ লোকের বসবাস। 

আধুনিক রোমানিয়ার গোড়াপত্তন ১৮৫৯ সালে। দেশ হিসেবে রোমানিয়া নাম নিয়ে এর যাত্রা শুরু ১৯৬৬ সাল থেকে। ওসমানিয়া সাম্রাজ্য থেকে স্বাধীনতা লাভ করে ১৯৭৭ সালে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের শেষ দিকে ট্রান্সসিলভানিয়া, বুকোভিনা ও বেসারাবিয়া যুক্ত হয়ে কিংডম অব রোমানিয়া গঠন করে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শুরুর দিকে নািস জার্মানির সহায়ক বাহিনী ছিল রোমানিয়া। তবে ১৯৪৪ সালে তারা পক্ষ পাল্টে মিত্র বাহিনীতে যোগ দেয়। ওই সময় জার্মান বাহিনী রোমানিয়ার বহু এলাকা দখল করে। যুদ্ধ শেষে এগুলো আবার ফিরে পায় রোমানিয়া। যুদ্ধের পর রোমানিয়া সমাজতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রে পরিণত হয়। দেশটির গণতান্ত্রিক যাত্রা শুরু হয় ১৯৮৯ সালের বিপ্লবের পর থেকে। অর্থনৈতিকভাবে নানা টানাপড়েন গেছে সেই সময়টায়।

বৈধভাবে বাংলাদেশ থেকে রোমানিয়ায় যাওয়া সম্ভব নয়। তবে স্টুডেন্ট ভিসায় সে দেশে যাওয়া সম্ভব।  বাংলাদেশে রোমানিয়ার কোনো দূতাবাস না থাকায় ভারত থেকে ভিসা সংগ্রহ করে সেখানে যেতে হয় বাংলাদেশিদের। রোমানিয়ায় বাংলাদেশের জন্য প্রচুর সম্ভাবনাময় একটি দেশ। কারণ সেদেশে অনেক কাজের জায়গা রয়েছে। শুধু তা-ই নয় ব্যবসা বাণিজ্য করার জন্যও এ দেশটি অপার সম্ভাবনাময়। তবে  মাত্র দেড়শ থেকে দুইশ বাংলাদেশি বসবাস করছে রোমানিয়াতে। যারা বেশিরভাগই স্টুডেন্ট ভিসায় রোমানিয়াতে গিয়েছিল। এছাড়াও খুব অল্প সংখ্যক প্রবাসী রয়েছেন যারা ওয়ার্কার ভিসায় গিয়েছেন দেশটিতে। তবে যারা ওয়ার্কার ভিসায় রোমানিয়াতে গিয়েছেন তারা বাংলাদেশ থেকে নয়, ইউরোপের অন্যদেশ থেকে কাজের খোঁজে সেখানে গিয়েছেন। জানা যায়, অটোমোবাইল, টেক্সটাইল, চামড়াশিল্প, ইলেক্ট্রনিক্স, আইটিসহ প্রভৃতির ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। এছাড়াও উচ্চ শিক্ষার ক্ষেত্রেও রোমানিয়ায় প্রচুর সুযোগ- সুবিধা রয়েছে। সেখানে নন ইউরোপীয় স্টুডেন্টদের জন্য খাওয়া-থাকার ব্যবস্থা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ করে থাকে। এমনকি পড়ালেখা শেষ করে সেখানে স্থায়ী ভাবে থাকারও সুযোগ রয়েছে রোমানিয়ায়। আমাদের দেশের পণ্যের অনেক চাহিদা রয়েছে সেদেশে। বিশেষ করে গার্মেন্টস পণ্যের চাহিদা অনেক। বাংলাদেশের থেকে অনেক নিম্ন আয়ের দেশের মানুষ রোমানিয়ার মতো দেশে অনেক ভালো কাজ করছে। কিন্তু শ্রমশক্তিতে এতো ভালো দেশ হওয়ার পরও নতুন শ্রমবাজার বের করতে পারছে না বাংলাদেশ। বাংলাদেশ সরকার যদি সেখানে দূতাবাস স্থাপনের মাধ্যমে কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা করে, তাহলে দু’দেশের মধ্যে উন্মুক্ত  বাণিজ্যের এক বিশাল সুযোগ সৃষ্টি হবে বলে জানা যায়। 

ভ্রমণের জন্য রোমানিয়া অনন্য এক দেশ। এদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের তুলনা নেই। আর সবচেয়ে বড় কথা, এদেশে বেড়াতে গেলে থাকা খাওয়া ও ঘুরে বেড়ানোর প্যাকেজটা বেশ সাশ্রয়ের মধ্যেই। যেসব জায়গায় শুরুতেই তালিকা করে ফেলেন পর্যটকেরা, তার একটা ধারণা নেয়া যাক তবে। 

দানিউব ডেল্টা

ইউরোপের ২য় দীর্ঘতম নদী ডেল্টা বয়ে চলেছে রোমানিয়ার মধ্য দিয়ে। এটি মূলত ব্ল্যাক সি এর অংশ। প্রকৃতিকে দেখার জন্য চমৎকার একটি জায়গা দানিউব ডেল্টা। ইউরোপের বিভিন্ন প্রজাতির গাছ আর প্রাণীর বাস এখানে। ২৩ টি ভিন্ন ইকোসিস্টেমের সাথে পরিচয় হবে আপনার যার মধ্যে বিশ্বের সবচেয়ে বড় জলাভূমিটিও অন্তর্ভূক্ত। অপূর্ব সূর্যাস্তের দৃশ্য মুগ্ধ করবে আপনাকে। নদীতে ভেসে বেড়াবেন নৌকায়, ভাসতে ভাসতে উপভোগ করবেন সূর্যাস্ত। 

ক্লুজ ন্যাপোকা 

দেশটির সবচেয়ে বড় বিশ্ববিদ্যালয় এখানে অবস্থিত। ক্লুজ ন্যাপোকাকে  বলা হয় ট্রানসিল্ভেনিয়ার অপ্রাতিষ্ঠানিক রাজধানী। এক সময় এটি ছিল রোমের কলোনি। বর্তমানে এটি রোমানিয়ার শিল্প-সংস্কৃতির কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। বিশাল হাঙ্গারিয়ান জনগোষ্ঠীর বাসভুমি ক্লুজ ন্যাপোকাতে হাঙ্গারিয়ান রাজার বেশ বড় একটি ভাস্কর্য রয়েছে। গথিক সেন্ট মাইকেলের চার্চের চার্চ টাওয়ারটি দেশের সবচেয়ে লম্বা চার্চ টাওয়ার, যা নির্মিত হয়েছে ১৪ শতকে। ন্যাশনাল মিউজিয়াম অফ আর্ট এমন একটি জাদুঘর যা না দেখলে আপনি মিস করবেন রোমানিয়ার শিল্পীদের চমৎকার কাজগুলো। তাই অবশ্যই যাবেন এখানে। 

মামাইয়া

ব্ল্যাক সি তে অবস্থিত মামাইয়া রোমানিয়ার সবচেয়ে জনপ্রিয় রিসোর্টের নাম মামাইয়া। এখান থেকে সমূদ্রের দৃশ্য দেখা বদলে দেবে জীবন সম্পর্কে আপনার অনুভূতি। মামাইয়া বেশ ছোট, মাত্র ৮ কিলোমিটার দীর্ঘ জায়গা জুড়ে এর অবস্থান। অসাধারণ সাদা বালির বীচটি যেন সৃষ্টিই হয়েছে সূর্য, মানুষ আর সমুদ্রের মিলন ঘটানোর উদ্দেশ্যে। 

তিমিসোয়ারা

পশ্চিম রোমানিয়ায় এর অবস্থান। এটি দেশটির অন্যতম বড় শহর এবং একই সাথে অনেক প্রাচীন, ১৩ শতাব্দীতে এর প্রতিষ্ঠা। অটোম্যান সাম্রাজ্যের অংশ ছিল এটি একসময়। এটিই প্রথম ইউরোপিয়ান শহর যার রাস্তায় বৈদ্যুতিক বাতির ব্যবহার হয়েছিল। ২য় বিশ্ব যুদ্ধের সময় শহরটির বড় অংশে ব্যাপক ক্ষতি হয়। এখানে মিসিরা অর্থোডক্স ক্যাথেড্রেলেটি নির্মিত হয়েছে বিংশ শতাব্দীতে। এর কেন্দ্রে রয়েছে ১১ টি উল্লেখযোগ্য টাওয়ার। এখানে গচ্ছিত আছে ভিন্টেজ আইকন পেইন্টিং সহ আরও অনেক ঐতিহাসিক ধর্মীয় দর্শনীয় বস্তু।

বুখারেস্ট

নতুন আর পুরাতনের সম্মিলন যে শহরে তার নাম বুখারেস্ট। শত বছরের পুরাতন দালান যেমন দেখতে পাবেন তেমন দেখতে পাবেন আধুনিক হাই রাইজ বিল্ডিং। এই ইউরোপিয়ান শহরে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সংসদ ভবন অবস্থিত যের কক্ষের সংখ্যাই ৩১০০! উচ্চতায় ১২ তলা। ১৯৮৪ সালে নির্মিত ভবনটি বহু পর্যটককে আকর্ষণ করে প্রতিদিনই।

এক নজরে

পুরো নাম : রোমানিয়া

রাজধানী ও সবচেয়ে বড় শহর : বুখারেস্ট

দাপ্তরিক ভাষা : রোমানীয়

উল্লেখযোগ্য জাতিগোষ্ঠী : ৮৮ শতাংশ রোমানীয়, ৬.১ শতাংশ হাঙ্গেরীয়।

সরকারপদ্ধতি : ইউনিটারি সেমি-প্রেসিডেনশিয়াল রিপাবলিক। 

আইনসভা : পার্লামেন্ট

উচ্চকক্ষ : সিনেট

নিম্নকক্ষ : চেম্বার অব ডেপুটিস

আয়তন : দুই লাখ ৩৮ হাজার ৩৯৭ বর্গকিলোমিটার

জনসংখ্যা : এক কোটি ৯৬ লাখ ৩৮ হাজার

ঘনত্ব : প্রতি বর্গকিলোমিটারে ৮৪.৪ জন

ডজডিপি : মোট ৪৭৪.০৩২ বিলিয়ন ডলার

মাথাপিছু আয় : ২৫ হাজার ৫৩৩ ডলার

মুদ্রা : রোমানীয় লিও

জাতিসংঘে যোগদান : ১৪ ডিসেম্বর ১৯৫৫।

ছবি ও তথ্য – ইন্টারনেট 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
        
copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers