সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮ , ১৮ সফর ১৪৪৩

ফিচার
  >
মানচিত্র

আঙুর আর মদের হলেও চিলি অনিন্দ্য দেশ

নিউজজি ডেস্ক ১৯ সেপ্টেম্বর , ২০১৮, ১২:৩৮:০৩

15K
  • আঙুর আর মদের হলেও চিলি অনিন্দ্য দেশ

৮০০০ হেক্টরেরও বেশি জায়গাজুড়ে আঙ্গুরের বাগান। আছে আঙুরের রস হতে তৈরি মদ, এই মদ ছাড়াও রয়েছে দামি দামি মদ। এখানেই রয়েছে বিশ্ববিখ্যাত রহস্যের সেই জায়গা ‘ইস্টার আইল্যান্ড’।৮৮৭টির পাথুরে মাথা নিয়ে চুম্বকের মতো টেনে নিচ্ছে পর্যটকদের। আসুন, জেনে নিই চিলি নামের এই দারুণ দেশটা সম্পর্কে। 

দক্ষিণ আমেরিকার দক্ষিণ-পশ্চিম অংশের একটি দেশ চিলি। দেশটি প্রশান্ত মহাসাগরের উপকূল ঘেঁষে একটি লম্বা ফিতার মত প্রসারিত একটি ভূখণ্ড। উত্তর-দক্ষিণে চিলির দৈর্ঘ্য প্রায় ৪,২৭০ কিলোমিটার, কিন্তু এর গড় বিস্তার ১৮০ কিলোমিটারেরও কম। 

উত্তরের ঊষর মরুভূমি থেকে শুরু করে দক্ষিণের ঝঞ্ঝাপীড়িত হিমবাহ ও ফিয়র্ডসমূহ চিলির ভূ-দৃশ্যাবলির বৈচিত্র্যেীর স্বাক্ষর বহন করছে। 

দেশটির মধ্যভাগে একটি উর্বর উপত্যকা অবস্থিত। পূর্বে আন্দেস পর্বতমালা আর্জেন্টিনার সাথে সীমান্ত তৈরি করেছে। 

চিলির রাজধানী ও বৃহত্তম শহর সান্তিয়াগো মধ্যভাগের উপত্যকায় অবস্থিত। চিলির অধিকাংশ জনগণ দেশের মধ্যাঞ্চলের উর্বর কেন্দ্রীয় উপত্যকায় বাস করেন। 

বেশির ভাগ লোক স্পেনীয় ও আদিবাসী আমেরিকানদের মিশ্র জাতির লোক। রোমান ক্যাথলিক ধর্ম এখানকার প্রধান ধর্ম। স্পেনীয় ভাষা এখানকার সরকারি ভাষা। চিলি দক্ষিণ আমেরিকার একটি নেতৃস্থানীয় শিল্পোন্নত দেশ। এর অর্থনীতি খনন শিল্প ও কৃষিভিত্তিক। 

চিলি বিশ্বের বৃহত্তম তামা উৎপাদক ও রপ্তানিকারক। এছাড়াও দেশটি ফলমূল ও শাকসবজি রপ্তানি। চিলির ওয়াইন অনেক দেশে জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। চিলি ১৬শ শতক থেকে স্পেনের একটি উপনিবেশ ছিল। ১৯শ শতকের শুরুর দিকে এটি স্বাধীনতা লাভ করে। গোটা ১৯শ শতক ধরে রপ্তানির মাধ্যমে এটি সমৃদ্ধি লাভ করে, কিন্তু এতে মূলত জমিদার উচ্চ শ্রেণীর লোকেরাই লাভবান হন। এখনও চিলিতে ধনী-দরিদ্রের বৈষম্য প্রকট। 

দেশটিতে অভ্যুত্থানের ঘটনা তুলনামূলকভাবে অনেক কম ঘটেছে। তবে অগাস্টো পিনোশের ১৭ বছরের শাসনামলের সময়টিতে অন্তত তিন হাজার লোক নিহত বা নিখোঁজ হয়। ২০১০ সালে ডানপন্থী প্রেসিডেন্ট সেবাস্তিয়ান পিনেরা প্রায় দুই দশকের বামপন্থী শাসনের অবসান ঘটিয়ে ক্ষমতায় আসেন।

২০১৪ সালে বর্তমান প্রেসিডেন্ট মিশেল বাসেলেতের কাছে পরাজিত হন তিনি। লাতিন আমেরিকার অন্যতম শক্তিশালী অর্থনীতির দেশ চিলি। তাদের প্রধান আয়ের পথ তামা রপ্তানি। অঞ্চলিক রাজনীতিতেও এর ভূমিকা আছে। যদিও পেরু ও বলিভিয়ার সঙ্গে তাদের সম্পর্ক খুব ভালো নয়।

লেক ক্যারেরা - চিলির পাতাগোনিয়ায় অবস্থিত লেক জেনারেল ক্যারেরা প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যের অনন্য ভান্ডার। এখানে আছে আজিউর ট্যাম্পল। অবাক লাগলেও সত্যি, এই মন্দির প্রাকৃতিক উপায়ে তৈরি। এর দেয়াল মার্বেলের তৈরি,যা আবার পানিতে পরিপূর্ণ। এখানে না গেলে আপনি বিশ্বাস করবেন না,আমাদের পৃথিবী যে কত অদ্ভুত আর বিস্ময়কর হতে পারে!

অগ্ন্যুদগীরণে জন্ম নিয়েছে চিলির আটাকামা মরুভূমির এই ক্যানিয়নের রূপ। যে দিকে চোখ যায়, কেবলই রুক্ষ পাথর! একশ বছরে বৃষ্টি হয়েছে তিন থেকে চারদিন। মঙ্গল গ্রহের সঙ্গে রূপে বিশেষ তফাত নেই বললেই চলে!

রেড লেগুন। উত্তর চিলি থেকে ১৪৭ কি.মি. ভেতরে কামিনা শহর। তার অন্তর্গত সমুদ্রপৃষ্ঠের আনুমানিক ৩,৭০০ মিটার উপরে রয়েছে এই আশ্চর্য রেড লেগুন। লেগুনের জল এতটা লাল যে তা দেখতে অনেকটা রক্তের মতো লাগে। লাল জলপূর্ণ এই জলাশয়ের পাশাপাশি রয়েছে হলুদ এবং সবুজ জলের আশ্চর্য লেক। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৩,৭০০ মিটার উপরে রয়েছে চিলির এই আশচর্য রেড লেগুন।  

চিলির উপকূল থেকে ৩৬০০ কিলোমিটার দূরের ইস্টার আইল্যান্ডকে  পৃথিবীর অন্যতম নিঃসঙ্গ দ্বীপ বলা হয়। নীরব এই দ্বীপটিতে এখনো নীরবে দাঁড়িয়ে আছে অসংখ্য পাথরের তৈরি ভাস্কর্য। কে বা কারা এই বিশাল আকৃতির মূর্তিগুলো তৈরি করেছিল তা এখনো সবার কাছেই অজানা। কেন বা কী কারণে এই জনবিরল দ্বীপে এসব ভাস্কর্যগুলো তৈরি করা হলো তাও রহস্যের কেন্দ্রবিন্দু। রহস্যঘেরা ইস্টার দ্বীপের বড় রহস্য প্রতিটি মূর্তিই বিশাল পাথর কেটে তৈরি করা। ধারণা করা হয়, পলিনেশীয় কিছু দ্বীপেই পাথরের গায়ে খোদাই করে ছবির নমুনা দেখা যায়, যাকে বলে পেট্রগ্লিপস। তবে এই পেট্রগ্লিপস সংস্কৃতির সবচেয়ে বড় ভাণ্ডার সংগ্রহ রয়েছে ইস্টার দ্বীপে। বিশেষজ্ঞদের মতে, এখানে প্রায় ১০০০টি স্থানে ৪০০০-এর মতো পেট্রগ্লিপসের নমুনা আছে। উল্লেখ্য, মার্কেসাস দ্বীপেও পেট্রগ্লিপসের প্রচুর নমুনা পাওয়া যায়। কিন্তু প্রশ্ন হলো এ দ্বীপবাসী এই কৌশল রপ্ত করল কীভাবে? তা ছাড়া এত বড় বড় বিশাল পাথরগুলোই বয়ে আনল কীভাবে এবং কোথা থেকে? এসব রহস্যের কূলকিনারা এখনো খুঁজছেন বিশ্লেষকরা। দ্বীপটির সবচেয়ে বড় আকর্ষণ হলো সাতটি বৃহদাকার ভাস্কর্য। যাদের আসলে ‘নেভল অব দ্য ওয়ার্ল্ড’ বলা হয়।

একনজরে

পুরো নাম : 

চিলি প্রজাতন্ত্র 

রাজধানী : সান্তিয়াগো 

রাষ্ট্র ভাষা : স্প্যানিশ 

সরকার : প্রেসিডেন্ট শাসিত সাংবিধানিক প্রজাতন্ত্র 

প্রেসিডেন্ট : মিশেল বাসেলেত 

আইনসভা : জাতীয় কংগ্রেস 

উচ্চকক্ষ : সিনেট 

নিম্নকক্ষ : চেম্বার অব ডেপুটিজ 

আয়তন : সাত লাখ ৫৬ হাজার ৯৬ বর্গ কিলোমিটার 

প্রধান ধর্ম : খ্রিস্টান 

জনসংখ্যা : এক কোটি ৮০ লাখ ছয় হাজার ৪০৭ জন 

ঘনত্ব : প্রতি বর্গকিলোমিটারে ২৪ জন 

গড় আয়ু : ৭৬ বছর (পুরুষ), ৮২ বছর (নারী) 

প্রধান রপ্তানি পণ্য : তামা, মাছ, ফল, কাগজ, মণ্ড, রাসায়নিক দ্রব্য। 

জিডিপি : মোট ৪১০ দশমিক ২৭৭ বিলিয়ন ডলার, 

মাথাপিছু ২৩ হাজার ১৬৫ ডলার 

মুদ্রা : পেসো 

জাতিসংঘে যোগদান: ২৪ অক্টোবর ১৯৪৫।

তথ্য ও ছবি – ইন্টারনেট 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
        
copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers