শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১ আশ্বিন ১৪২৮ , ৮ সফর ১৪৪৩

ফিচার
  >
মানচিত্র

আধুনিক ফুটবলের বিকাশ ইংল্যান্ডেই

নিউজজি ডেস্ক ১১ জুলাই , ২০১৮, ১১:৪০:৪১

  • আধুনিক ফুটবলের বিকাশ ইংল্যান্ডেই

সারা বিশ্বে এই মুহূর্তে বিশ্বকাপ ফুটবলের উত্তেজনা। অনেক ফেভারিট দল এরমধ্যে বিদায় নিলেও টিকে আছে যে কয়টি দল, তারমধ্যে ইংল্যান্ড অন্যতম। ইতোমধ্যে ফ্রান্স পৌঁছে গেছে ২০১৮ বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনালে। বাকি আছে ক্রোয়েশিয়া ও ইংল্যান্ড। যেকোনো এক দলের ভাগ্য আজ লেখা হবে রাশিয়ায়। এর আগে আমরা বিভিন্ন দলের ফুটবল ইতিহাস নিয়ে লিখেছি। আজ থাকছে ইংল্যান্ডের ফুটবল নিয়ে খুঁটিনাটি। 

ফুটবলের জন্ম চীনে হলেও আধুনিক ফুটবলের আদিরূপ সৃষ্টি হয়েছে ইংল্যান্ডে। খ্রষ্টীয় ৯ম শতাব্দীতে লিখিত Historia Brittonum বইতে এই খেলার উল্লেখ পাওয়া যায়। ইংল্যান্ডে প্রথম দিকে যে বল খেলা হত তার নাম ছিল 'mob football'। এই খেলায় দুই দলে অগণিত খেলোয়াড় থাকত এবং এরা একটা বলকে গায়ের জোরে ধাক্কা ধাক্কি করে একটা নির্দিষ্ট জায়গায় নিয়ে যেতে পারলে পয়েন্ট হত। এই খেলা তখন প্রতিবেশী গ্রাম বা শহরগুলোর মধ্যে হতো। বিভিন্ন সামাজিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে এই খেলা একটি অন্যতম অঙ্গ হিসেবে বিবেচিত হতো।

১৮৭২ খ্রিষ্টাব্দে নতুন নিয়মে স্কটল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের মধ্যে। এটি ছিল ফিফা স্বীকৃত প্রথম আন্তর্জাতিক ফুটবল খেলা। খেলার ফলাফল ছিল ০-০।

১৯০৮ খ্রিষ্টাব্দের অলিম্পিকে ফুটবল প্রথম আনুষ্ঠানিক খেলার মর্যাদা পায়। এই প্রতিযোগিতা ছিল অপেশাদার খেলোয়াড়দের জন্য। এই অলিম্পিকেই ইংল্যান্ড জাতীয় অপেশাদার ফুটবল দল অংশগ্রহণ করে জয়লাভ করে।

বর্তমানে ইংল্যান্ডের আন্তর্জাতিক ফুটবল খেলার দল এবং ফুটবল এসোসিয়েশন কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত হয়, যা ইংল্যান্ডে ফুটবলের প্রশাসনিক প্রতিষ্ঠান। যুক্তরাজ্যের অংশ হলেও বিভিন্ন পেশাদারী প্রতিযোগিতার জন্য ইংল্যান্ডের নিজস্ব দল আছে। তবে অলিম্পিক প্রতিযোগিতায় ইংল্যান্ড একা প্রতিনিধিত্ব করেনা, বরং পুরো যুক্তরাজ্য অলিম্পিকে একসাথে অংশগ্রহণ করে। যুক্তরাজ্যের জাতিগুলোর মধ্যে ইংল্যান্ডই সবচেয়ে সফল, তারা ব্রিটিশ হোম চ্যাম্পিয়নশিপ জিতেছে ৫৪বার এবং ফিফা বিশ্বকাপ জিতেছে একবার, সেটা ১৯৬৬ সালে। তারা অবশ্য কখনো উয়েফা ইউরোপীয়ান ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ জিততে পারেনি, তবে দুবার সেমি-ফাইনালে উঠেছে। 

ঐতিহাসিকভাবে ইংল্যান্ডের চিরপ্রতিদ্বন্দ্ব্বী হচ্ছে স্কটল্যান্ড। স্কটল্যান্ডের সাথে ইংল্যান্ড সর্বশেষ খেলা হয়েছে ইউরো ২০০০ এর প্লে-অফে ১৯৯৯ সালের নভেম্বরে। পুরাতন ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে অণুষ্ঠিত এ খেলায় স্কটল্যান্ড ১-০ গোলে জয়ী হয়। ১৯৮০ সাল থেকে স্কটল্যান্ডের সাথে নিয়মিত খেলা বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর থেকে অন্যান্য জাতির সঙ্গে ইংল্যান্ডের প্রতিদ্বন্দ্ব্বীতা বৃদ্ধি পেতে থাকে। এর মধ্যে আর্জেন্টিনা বনাম ইংল্যান্ড ও জার্মানি বনাম ইংল্যান্ড, চির-প্রতিদ্বন্দ্ব্বী হিসেবে খ্যাতি পায়।

রাশিয়া বিশ্বকাপ ২০১৮ এর সেমিফাইনালে উঠেছে ইংল্যান্ড। আজ জানা যাবে তারা কতদূর যাবে অথবা থেমে যাবে কি না এখানেই। এই বিশ্বকাপে মাঝমাঠের খেলোয়াড় জর্ডান হ্যান্ডারসনের ওপর থাকছে দলের নেতৃত্বের ভার। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ (ইপিএল) তারকা হ্যারি কেন, জ্যামি ভার্ডি আর মার্কাস র্যা শফোর্ডের সঙ্গে সুযোগ পেয়েছেন ড্যানি ওয়েলব্যাকও। 

রাশিয়া বিশ্বকাপে ২৩ সদস্যের ইংল্যান্ড দল : 

গোলরক্ষক : জ্যাক বাটল্যান্ড, জর্ডান পিকফোর্ড ও নিক পোপ। 

ডিফেন্ডার : ট্রেন্ট আলেকজান্ডার-আরনোল্ড, গ্যারি কাহিল, ফিল জোনস, হ্যারি ম্যাগাইর, ড্যানি রোজ, জন স্টোনস, কিরন ট্রিপিয়ার, কাইল ওয়াকার ও অ্যাশলে ইয়ং।

মিডফিল্ডার : ডেলে আলি, ফ্যাবিয়ান ডেলফ, এরিক ডায়ার, জর্ডান হ্যান্ডারসন, হেসে লিনেগার্ড, রুবেন লফটাস-চিক ও রাহিম স্টার্লিং। 

ফরোয়ার্ড : হ্যারি কেন, মার্কাস র্যা শফোর্ড, জ্যামি ভার্ডি ও ড্যানি ওয়েলব্যাক।

ছবি ও তথ্য – ইন্টারনেট 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
        
copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers