মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ , ৪ জিলকদ ১৪৪২

ফিচার
  >
প্রাণী ও পরিবেশ

খঞ্জনা পাখি

নিউজজি ডেস্ক ১ জুলাই , ২০২০, ০০:২০:৩৭

  • খঞ্জনা পাখি

ঢাকা : পাখির দেশ বাংলাদেশ। লাল পাখি। নীল পাখি। সাদা পাখি। হলদে পাখি। কত কত পাখির যে দেশ এই বাংলাদেশ, সেটার হিসেব কঠিন। এত এত পাখির ভিড়ে বড় আদুরে এক পাখির নাম খঞ্জনা। 

খঞ্জনা নানা নামে পরিচিত যেমন, খঞ্জন, সাদা খঞ্জন, ধলা খঞ্জন, মোহক, ধোবিন, লেজ নাড়া। স্ত্রী পাখিদের খঞ্জনিকা বলা হয়। এর ইংরেজী নাম Wagtail আর genus Motacilla। এরা লম্বা লেজবিশিষ্ট চড়ুই আকারে পাখি। দৈর্ঘে প্রায় ১৮-১৯ সে.মি.। এদের বাইরের বাইরের পালক সাদা।মাথার উপরের দিকে কালো, পিঠ ছাই বর্ণ ,চোখ, ঠোঁট, পা এবং গলার নিচ থেকে বুকের দিকটা অনেকটা ইউ শেপের মত করে কালো, মুখ এবং বুকের নিচের বাকি অংশ সাদা ও লেজ কালো। 

এরা বীজ, পোকামাকর, ক্ষুদ্র শামুক, কেচোঁ ইত্যাদি খায়। এসব পাখি দ্রুত হাঁটে ও দৌড়ায় আর শিকার ধরতে ছুটে চলে। এরা কাক-শালক প্রভৃতি পাখির মত সোজাসুজি উড়তে পারেনা ঢেউ এর মত উচুনিচু হয়ে উড়ে বেড়ায়। 

খঞ্জন সর্বক্ষন লেজ নাড়ে আর কিচ কিচ করে ডাকে। নদীনালার কাছে ও আর্দ্র তৃণভূমির কাছে এরা বসবাস করে। এরা ঘাস, শিকড় দিয়ে বাসা বানায় আর তাতে চুল-পালকের আস্তর থাকে। এদের প্রজনন সময়- মে-জুলাই মাস। ডিম পাড়ে ৪/৬ টি, রং হলুদ দাগসহ নীলচে সাদা বা বাদামী। 

সারা পৃথিবীতে খঞ্জনার প্রজাতি সংখ্যা ১২ টি, বাংলাদেশে ৬টি প্রজাতি দেখা যায় তার মধ্যে ১টি স্থায়ী আর বাকিরা পরিযায়ী। বাংলাদেশে যে ৬টি প্রজাতির খঞ্জন দেখা যায় তাদের সংক্ষিপ্ত বর্ননা নিচে দেওয়া হলঃ 

পাকরা খঞ্জন

কালো এ সাদা পালকের বড় আকারের খঞ্জনা, দেখতে অনেকটা দয়েলের মত। কিন্তু ভ্রুরু সুস্পষ্ট সাদা রঙের। স্ত্রী পাখির রঙ ফ্যাকাশে ও বাদামী ধাচেঁর। ছোট দনী, পুকুরের ধারে জোড়ায় জোড়ায় থাকে।সারা দেশেই কম বেশী দেখা যায়। পুরুষ পাকরা খঞ্জন স্ত্রী পাকরা খঞ্জন এদের ইংরেজী নাম White-browed Wagtail বা Large Pied Wagtail আর বৈজ্ঞানিক নাম Motacilla maderaspatensis 

বন খঞ্জন

পিঠ বুক সবুজ বাদামী, ডানা কালচে বাদামী আর তাতে হলুদ রঙে ২টি চওড়া ফোটা।লেজ গাঢ় বাদামী, কিনার সাদা। দেশের উত্তর-পূর্ব দক্ষিন চির সবুজ বনে ওদের বসবাস। এদের ইংরেজী নাম Forest Wagtail আর বৈজ্ঞানিক নাম Dendronanthus indicus বা Motacilla indica । 

সাদা খঞ্জন

শীত কালে পালকের কৃষ্ণতা কমে গিয়ে নিচের অংশের মত থুতনি ও গলা সাদা হয়ে ওঠে। এরা উন্মুক্ত তৃণভূমিতে বিক্ষিপ্ত দলে ঘুরে বেড়ায় আর খাবার খোঁজে। এদের ইংরেজী নাম White Wagtail আর বৈজ্ঞানিক নাম Motacilla alba । 

৪। ধলা খঞ্জনঃ এরা প্রধাণত ধূসর ও কালো রঙের পাখি। ছোট্ট নদী ধারে একা একা ঘুরে বেড়ায়। শীত কালে স্ত্রী পুরুষ দৃশ্যত অভিন্ন তবে গ্রীষ্মকালে পুং পাখির গলা, চিবুক ও বুকের উপরের অংশ কালো রং ধারণ করে। এদের বৈজ্ঞানিক নাম Motacilla cinerea আর ইংরেজী নাম Grey Wagtail । 

৫। হলুদ খঞ্জনঃ এদর গড়ন লম্বাটে ছোট। পিঠ প্রধানত হলুদ বা জলপাই সবুজ। পেট হলুদ আর লম্বা লেজ। জলাভূমি আর ক্ষেতভূমিতে সর্বক্ষন লেজ দুলিয়ে ছোটা ছুটি করে। হলদে খঞ্জন এর ইংরেজী নাম Yellow Wagtail ও বৈজ্ঞানিক নাম Motacilla flava। 

৬।মোহকঃ গ্রীষ্মকালে পুরুষ পাখির উজ্জল হলুদ রঙের মাথা বৈশিষ্টপূর্ণ। শতিকালে স্ত্রী ও পুরুষ পাখির চাদি পিঠ কালচে ধুসর, পেটের দিকে হলুদ সাদা, চওড়া হলুদ রঙের ভ্রুরেখা ও অল্পবিস্তার হলুদ কপালের কারনে অন্য খঞ্জন থেকে সহজেই পৃথক করা যায়।

ছবি ও তথ্য – ইন্টারনেট 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers