শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ , ১৩ শাবান ১৪৪৫

ফিচার
  >
বিচিত্র

ঘুমিয়ে থাকার প্রতিযোগিতা

নিউজজি ডেস্ক ৯ সেপ্টেম্বর , ২০২৩, ১২:৩২:০০

6K
  • ঘুমিয়ে থাকার প্রতিযোগিতা

ঢাকা: ইউরোপের দেশ মন্টিনিগ্রোতে চলছে অভিনব এক প্রতিযোগিতা। কে কতক্ষণ শুয়ে কাটাতে পারে তার লড়াই চলছে টানা ৪৬৩ ঘণ্টা ধরে। এর শেষ কোথায় তা এখনো কেউ বুঝতে পারছে না। প্রতিযোগিতায় বিজয়ীর জন্য থাকছে এক হাজার ইউরো পুরস্কার।

শুরুতে দেখে মনে হতে পারে কোন অসুস্থতা বা ভীষণ পরিশ্রম শেষে বিশ্রাম নিচ্ছেন একদল তরুণ-তরুণী। তবে আদতে তা নয়। এদের কেউই অসুস্থ বা পরিশ্রমী নন বরং সবচেয়ে অলস ব্যক্তির খাতায় নাম লিখিয়েছেন তারা। সে তালিকায় প্রথম হতেই চলছে আলসেমির লড়াই। খবর সিএনএনের।

ইউরোপের দেশ মন্টিনিগ্রোর ব্রেজনা গ্রামে ১২ বছর ধরে অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে এই প্রতিযোগিতা। একজন প্রতিযোগী বলেন, ২০২১ সালে এ প্রতিযোগিতায় আমি প্রথম হয়েছিলাম। পরিবারের উৎসাহে এবার আসা। তবে এবার প্রতিযোগিতা অনেক কঠিন হচ্ছে। সেবার ১১৭ ঘণ্টা হলেও এবার সময়টা তিনগুণ দীর্ঘ হয়েছে।

শুনে মনে হতে পারে এ আর এমন কী কঠিন কাজ! শুধু তো শুয়ে থাকাই। তবে না, প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে মানতে হবে শর্ত। যেমন, অর্ধেক শুয়ে থাকলেও চলবে না। হতে হবে পুরোপুরি শয্যাশায়ী। প্রতি আট ঘণ্টা পর পর টয়লেটে যাওয়ার জন্য পাওয়া যাবে মাত্র ১০ মিনিটের বিরতি।

আরেকজন প্রতিযোগী বলেন, আমি প্রথমবারের মতো এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছি। মূলত নিজের ধৈর্য্য যাচাই করতেই আমার এখানে আসা। আমাদের যা দরকার তার সবকিছুর ব্যবস্থা করছে আয়োজকরা। আমাদের কাজ শুধু শুয়ে থাকা।

শুয়ে থেকে যেকোনো কিছু করা যাবে। যেমন মোবাইল বা ল্যাপটপ ব্যবহার, বই পড়তে পারেন প্রতিযোগীরা। প্রতিযোগিতায় এতদিন পর্যন্ত ১১৭ ঘণ্টার রেকর্ড থাকলেও এবার সেটা আরও ১৫ দিন আগেই সে সময় পার হয়েছে। ২০ দিন অর্থাৎ ৪৬৩ ঘণ্টা ধরে শুয়েই কাটাচ্ছেন প্রতিযোগীরা। শেষ হবে কবে তা বলতে পারছেন না কেউই।

প্রতিযোগিতার আয়োজক রাদোনজা ব্লাগোজেভিক জানান, সারাবিশ্বে মন্টিনিগ্রোর মানুষজন অলস হিসেবে পরিচিত। সে ধারণাকে ব্যঙ্গ করেই এ আয়োজনের শুরু। এ বছর ২১ জন আবেদন করলেও অংশ নিয়েছেন সাত প্রতিযোগী। প্রতিযোগিতায় জয়ীর জন্য থাকছে এক হাজার ডলার বা ১ লাখ ১৭ হাজার টাকা পুরস্কার।

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন