রবিবার, ২০ জুন ২০২১, ৫ আষাঢ় ১৪২৮ , ৯ জিলকদ ১৪৪২

শিক্ষা

যবিপ্রবির আবিষ্কৃত পদ্ধতিতে করোনা শনাক্তে খরচ হবে ১৪০ টাকা

যশোর প্রতিনিধি ১০ মে , ২০২১, ১৬:৩৮:৫০

  • ইন্টারনেট থেকে

যশোর: যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) একদল গবেষক কম খরচে করোনাভাইরাস শনাক্তে ‘সাইবারগ্রিন পদ্ধতি’ উদ্ভাবনের দাবি করেছে। তারা বলছেন, এই পদ্ধতিতে করোনা শনাক্ত করতে প্রতি নমুনার জন্য খরচ হবে মাত্র ১৪০ টাকা। আর পরীক্ষায় সময় লাগবে ৯০ মিনিট।

সোমবার (১০ মে) বেলা ১১টায় যবিপ্রবির সম্মেলন কক্ষে এক সাংবাদিক সম্মেলনে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও জিনোম সেন্টারের পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন নতুন এ উদ্ভাবনের ঘোষণা দেন।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, পরীক্ষা করে দেখা গেছে, সাইবারগ্রিন পদ্ধতিতে করোনা শনাক্তের সেনসিটিভিটি প্রচলিত অন্যান্য কিটের সমপর্যায়ের। এই গবেষণাটি প্রিপ্রিন্ট আকারে ‘সবফরা’ সার্ভারে পাওয়া যাচ্ছে এবং একটি পিয়ার রিভিউড জার্নালে প্রকাশের অপেক্ষায় রয়েছে।

অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন বলেন, সরকারের সহায়তা পেলে আমরা এই গবেষণাকে কাজে লাগিয়ে খুব সহজে এবং কম খরচে করোনা শনাক্তের কাজটি আমাদের দেশে করতে সক্ষম হব।

যবিপ্রবি উপাচার্য বলেন, পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে সংক্রমণশীল নতুন ভ্যারিয়েন্ট আমাদের মধ্যে এক ধরনের শঙ্কার সৃষ্টি করেছে। ইতোমধ্যে এ ভ্যারিয়েন্টের হোল জিনোম সিকুয়েন্সিং এবং স্পাইক প্রোটিনের সিকুয়েন্সিং সম্পন্ন করে জিএসআইডি ডাটাবেজে জমা দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি গত মার্চ ও এপ্রিল মাসে এই অঞ্চলে সংক্রমণ সৃষ্টিকারী ১০০টির মতো ভাইরাসের নমুনার স্পাইক প্রোটিন সিকুয়েন্স করা হয়েছে। ভাইরাসগুলোর মধ্যে উচ্চ সংক্রমণ ক্ষমতা সম্পন্ন সাউথ আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্টের সংখ্যা সবচাইতে বেশি।

এ ছাড়াও আমরা স্পাইক প্রোটিনে কিছু বিরল মিউটেশন পেয়েছি যা এই অঞ্চলে এখনো দেখা যায়নি। সে মিউটেশনগুলোর প্রভাব নিয়ে আমরা কাজ করছি। এ ধরনের মিউটেশনগুলো সংক্রমণ ক্ষমতার উপর কিংবা রোগের ভয়াবহতার উপর কেমন প্রভাব ফেলতে পারে তা নিয়ে গবেষণা চলছে এবং শিগগিরই এই গবেষণার ফলাফল আমরা প্রকাশের জন্য উন্মুক্ত করব।

বাংলাদেশের ব্যাংকনোটে করোনাভাইরাসের আরএনএর উপস্থিতির বিষয়ে এক গবেষণাপত্রের সূত্র ধরে অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, আমাদের গবেষক দল দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে প্রাপ্ত ব্যাংকনোটে ভাইরাসের আরএনএর উপস্থিতি পেয়েছেন। গবেষক দল ব্যাংকনোটে ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত ভাইরাসের এন-জিনের উপস্থিতি এবং ৮-১০ ঘণ্টা পর্যন্ত ওআরএফ জিনের স্থায়িত্ব শনাক্ত করতে পেরেছেন। এই গবেষণাপত্রটি ইতোমধ্যেই একটি জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

তিনি বলেন, নিরাপদ থাকতে বর্তমানে যে টিকা দেওয়া হচ্ছে সেটা নেওয়ার পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। বিশেষ করে মাস্ক পরতে হবে। কারণ মাস্ক আমাদের ৯৫ শতাংশ সুরাক্ষা দিতে সক্ষম।

গোটা বিশ্বেই এই ভাইরাস নিয়ে এখনো গবেষণা চলছে উল্লেখ করে অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, করোনাকালের অবসান কবে হবে তাও এখন অনিশ্চিত। আমাদের দেশে যেমন করোনা শনাক্ত, করোনা চিকিৎসার ব্যবস্থা নিশ্চিত করা, করোনার টিকা প্রদানের ব্যবস্থা করা জরুরি, ঠিক তেমনি পরিবর্তনশীল এই ভাইরাস নিয়ে নিরবিচ্ছিন্ন গবেষণাও জরুরি বলে আমরা মনে করি। একটি নবীন বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য নিজস্ব ল্যাবে করোনা পরীক্ষার পাশাপাশি চলমান পরিস্থিতিতে এ ধরনের সৃজনশীল গবেষণা করা নিঃসন্দেহে একটি উল্লেখযোগ্য সাফল্য। আপনাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা ও সমর্থন অব্যাহত থাকলে ভবিষ্যতে বিএসএল-৩ ল্যাবরেটরি স্থাপন করে ভ্যাকসিন তৈরিসহ আরও উচ্চমানের গবেষণা করতে আমাদের গবেষণা দল প্রস্তুত আছে বলেও জানান তিনি।

অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, জাতির এ মহাদুর্যোগকালে যশোর ও যশোর সংলগ্ন মাগুরা, ঝিনাইদহ, নড়াইল, চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, সাতক্ষীরা ও বাগেরহাট জেলার করোনা সন্দেহভাজনদের নমুনা শনাক্তের কাজ করে আমরা সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছি। করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এ যুদ্ধে শামিল হওয়ার সর্বাত্মক চেষ্টা করছি।

সাংবাদ সম্মেলনে জিনোম সেন্টারের সহকারী পরিচালক প্রফেসর ড. ইকবাল কবীর জাহিদ, অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. সেলিনা আক্তার, পুষ্টি ও খাদ্য প্রযুক্তি বিভাগের চেয়ারম্যান ড. শিরিন নিগার, বায়ো-মেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারম্যান ড. হাসান মো. আল-ইমরান, অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শোভন লাল সরকার, গবেষক তনয় চক্রবর্তী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

নিউজজি/ এসআই

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers