মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ , ৪ জিলকদ ১৪৪২

শিল্প-সংস্কৃতি
  >
মঞ্চ

শুক্রবার নাটকপাড়ায় নাট্যতীর্থের ‘দ্বীপ’

নিউজজি প্রতিবেদক ২৫ ডিসেম্বর , ২০১৯, ১৭:৫৫:২৩

  • শুক্রবার নাটকপাড়ায় নাট্যতীর্থের ‘দ্বীপ’

রাজধানীর সেগুনবাগিচাস্থ নাটকপাড়া-খ্যাত বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হলে আগামী ২৭ ডিসেম্বর শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৫টায় ও ৭টায় অনুষ্ঠিত হবে নাট্যতীর্থের দর্শকনন্দিত প্রযোজনা ‘দ্বীপ’-এর ১০৪ ও ১০তম মঞ্চায়ন। উৎপল দত্ত রচিত ‘দ্বীপ’ নাটকটি নির্দেশনা দিয়েছেন তপন হাফিজ। 

মানুষ আদর্শচ্যুত হয়ে মানুষই মানুষের কিভাবে ক্ষতি করে সেই বিষয়টি নাটকের গল্পে উঠে এসেছে। নির্দেশকের নিপুণ হাতের ছোঁয়া নাটকের বক্তব্যকে আরও বেশি গতিশীল করেছে। বিশেষ করে আমরা যে শ্রেণী সংগ্রামের কথা বলি, বিপ্লবের কথা বলি অথবা একটি শ্রেণীহীন সমাজের স্বপ্ন আঁকি। তা এক সময় ব্যক্তির সুখ-দুঃখ ছাড়িয়ে সর্ব মানবের সুখ-দুঃখের মহাকাব্য হয়। সেখানেই ধরা দেয় সব মানুষের মঙ্গল। এমন একটি সমাজের স্বপ্ন দেখে না কে! 

কিন্তু যখনই ব্যক্তি মানুষটি তার সুখ-বৈভব নিয়ে আবির্ভূত হয় তখনই তার আদর্শচ্যুতি ঘটে। এই আদর্শচ্যুতি শুধু ব্যক্তি মানুষকে নয়, সমগ্র সমাজের ক্ষতি করে। একজন মানুষ পৃথিবীর তাবত কিছুকে ফাঁকি দিতে পারে কিন্তু নিজেকে ফাঁকি দিতে পারে না। নিজেকে ফাঁকি দিলেও একদিন তাকে নিজের কাঠগড়ায় দাঁড়াতেই হয়। এমনই এক বিপ্লবী ও নিজ আদর্শে অনড় চরিত্র মিলন সরকার। যে সবাইকে নতুন সমাজের স্বপ্ন দেখায়। সেই নতুন সমাজের স্বপ্নে বিভোর হয়ে বিপ্লবীদের দলে ভেড়ে জনার্দন মল্লিক, কপিল নাথ ও ইউনুছ মোহাম্মদ। কিন্তু মিলন সরকার তার আদর্শের জায়গা থেকে সরে এসে ব্যক্তি সুখ নিয়ে ইয়েলো সাংবাদিকতা শুরু করে। সুপ্রিয়াকে নিয়ে পড়ে থাকে আমোদে-প্রমোদে।

অন্যদিকে, মিলন সরকারের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে মানুষের জন্য কাজ করতে গিয়ে জনার্দন, কপিল, ইউনুছ প্রাণ হারায়। কিন্তু মিলন সরকারের নতুন সমাজ গড়ার যে প্রত্যয় তা লোভ নামক ইন্দ্রিয়ের যাঁতাকলে পড়ে মিথ্যাকে সত্য বানিয়ে চালায়। সুপ্রিয়াকে বিয়ের প্রলোভনে ফেলে চলতে থাকে তার কাজ। কিন্তু মিলন সরকারকে নিজের কাঠগড়াতে দাঁড়াতেই হয়। তার স্বপ্ন দৃশ্যের মধ্য দিয়ে বিবেক নামক সত্তাটি মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে। ‘দ্বীপ’ নাটকটি এই যে ক্রান্তিকাল, এই যে অস্থিরতা, এই যে অরাজকতা, এই যে অসাধুতা তারই উত্তর খুঁজতে বেরিয়ে আসে। 

মানুষ দ্বীপ নয়, নয় কোন বস্তু। তাই তো এ নাট্যের শরীরজুড়ে মানবিকতার এবং মানবপ্রেমের জয়গানই শোনা গেল। মানুষ পালাবে কিন্তু মানুষ নিজের কাছ থেকে পালিয়ে কোথায় যাবে? এক সময় মিলন সরকারের মতো আমাদেরও কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে। তখন হয় তো মৃত্যু নামক চিরচেনা, চির জানা কিন্তু অনিবার্য মৃত্যু আমাদের নিয়ে যাবে এক গহীন নিকষ কালো অন্ধকারে। সেখান থেকে ফেরার কোন পথ থাকবে না। -এমনি বিবেকতাড়িত গল্পে গড়ে উঠেছে নাটকটির কাহিনি।

‘দ্বীপ’ নাটকের বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন তপন হাফিজ, সাদিয়া ইসলাম শান্তা, এস এম সামসুর রহমান পেরু, মারুফ তমাল, মোনালিসা মোনা, সেলিম সোলায়মান এবং ইসমাইল আহমেদ অয়ন। নাটকটির মঞ্চ পরিকল্পনা করেছেন ফয়েজ জহির, আলোক পরিকল্পনা করেছেন ঠান্ডু রায়হান, পোশাক পরিকল্পনা করেছেন কাজী শিলা এবং রূপসজ্জায় সুভাশীষ দত্ত তন্ময়।

নিউজজি/এসএফ

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers