সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০ , ১৬ শাবান ১৪৪৫

শিল্প-সংস্কৃতি

আলী যাকের: শিল্পকে ধারণ করা এক নন্দিত শিল্পী

নিউজজি প্রতিবেদক ২৭ নভেম্বর, ২০২৩, ১১:৪১:৪০

82
  • আলী যাকের: শিল্পকে ধারণ করা এক নন্দিত শিল্পী

কোনো দেশের অভিনয় জগতের ভিত্তি বা ফাউন্ডেশন হচ্ছে থিয়েটার। এই ভুবন থেকেই সমৃদ্ধ হয় অভিনয়, শিল্প জগত। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়। দেশের যত গুণী, খ্যাতিমান আর নন্দিত অভিনয়শিল্পী রয়েছেন, তাদের প্রায় সবাই থিয়েটার বা মঞ্চনাটকের মানুষ।

দেশে থিয়েটারের অবস্থান তৈরি করার পেছনে যে’কজন ব্যক্তির অবদান সবচেয়ে বেশি; মঞ্চ নাটকের আবেদন যারা ছড়িয়ে দিতে সক্ষম হয়েছিলেন সর্বস্তরের মানুষের মাঝে, তাদেরই একজন আলী যাকের। যাকে বলা হয় দেশের থিয়েটার আন্দোলনের বরপুত্র।

আলী যাকেরের বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারের গল্পে প্রবেশের আগে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময়কালের একটি ঘটনার দিকে নজর দেওয়া যাক। দেশে তখন যুদ্ধের দামামা বাজছে। প্রশিক্ষণ নিয়ে বাংলার দামাল ছেলেরা যুদ্ধের প্রস্তুতি নিচ্ছিল। তাদের দলে ছিলেন আলী যাকেরও। টগবগে এক যুবক তিনি তখন। মুক্তিযুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি নিলেন কলকাতায়। একদিন কলকাতার রাস্তায় হাঁটছিলেন আলী যাকের। দেখা হলো কিংবদন্তি চলচ্চিত্রকার আলমগীর কবিরের সঙ্গে। আলী যাকেরের মধ্যে যুদ্ধের প্রতি আগ্রহ দেখে তিনি বলেছিলেন, ‘শুধুই যে অস্ত্র দিয়ে যুদ্ধ হয়, তা কিন্তু নয়। অস্ত্র ছাড়াও যুদ্ধে জেতা সম্ভব। বুদ্ধিবৃত্তিক স্বাধীনতা ছাড়া কোনো জাতি স্বাধীন হতে পারে না’।

আলমগীর কবিরের সেই কথা পাল্টে দিয়েছিল আলী যাকেরের চিন্তা-ভাবনা। তিনি অস্ত্র ছেড়ে যোগ দিলেন সংস্কৃতিতে। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের ইংরেজি বিভাগের অনুষ্ঠান প্রযোজক ও উপস্থাপক হিসেবে কাজ শুরু করেন। আর শিল্পের সঙ্গে যুক্ত থেকেই তিনি অবদান রাখেন স্বাধীনতা যুদ্ধে।

যুদ্ধ যখন শেষের পথে, তখন আলী যাকেরকে তার বন্ধু নাট্যকার মামুনুর রশীদ জিজ্ঞাসা করেন- যুদ্ধ শেষে কি করবেন? কোনো কিছু না ভেবেই তিনি বললেন- নাটক করবো। অতঃপর স্বাধীন দেশে নাটক প্রতিষ্ঠার নতুন যুদ্ধে অবতীর্ণ হন তিনি।

সে এক অন্যরকম যুদ্ধ। যুদ্ধবিধ্বস্ত এক দেশে নাটকের প্রচলন করার যুদ্ধ। সে যুদ্ধেও বিজয় লাভ করেন আলী যাকের। থিয়েটার জগত পেলো প্রতিষ্ঠিত সম্মানের জায়গা, পাশাপাশি তিনি নিজেও হয়ে উঠলেন নন্দিত, জনপ্রিয় অভিনেতা।

আলী যাকের ছিলেন অত্যন্ত মেধাবী মানুষ। তিনি পড়াশোনা করেছেন সেন্ট গ্রেগরি স্কুল, নটর ডেম কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। তার এই সুশিক্ষার আলো ছড়িয়েছে অভিনয়ের জগতেও। শুদ্ধ সংস্কৃতি চর্চায় তিনি নিজেকে পুরোপুরি ঢেলে দিয়েছিলেন।

আলী যাকের প্রথম মঞ্চ নাটকে অভিনয় করেন ১৯৭২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি। সেটা ছিল মুনীর চৌধুরীর বিখ্যাত নাটক ‘কবর’। তার অনবদ্য অভিনয় দেখে নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ের সভাপতি জিয়া হায়দার আর সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আলী যাকেরকে আহ্বান জানান। তাদের নাট্যদল নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ে যোগ দেয়ার জন্য বলেন। আলী যাকেরও যুক্ত হন। তারপর এক লম্বা বর্ণিল পথচলা।

মঞ্চে আলী যাকের অভিনয় করেছেন অনেক বিখ্যাত নাটকে। সেসব নাটকের মধ্য থেকে তিনি নুরুলদীন, গ্যালিলিও ও দেওয়ান গাজী ইত্যাদি চরিত্রে বিপুল পরিচিতি লাভ করেছিলেন। তার অভিনীত মঞ্চনাটকগুলোর মধ্যে রয়েছে- ‘বুড়ো শালিকের ঘাড়ে রোঁ’, ‘বাকী ইতিহাস’, ‘বিদগ্ধ রমণী কুল’, ‘তৈল সংকট’, ‘এই নিষিদ্ধ পল্লীতে’, ‘দেওয়ান গাজীর কিসসা’, ‘সৎ মানুষের খোঁজে’, ‘অচলায়তন’, ‘কোপেনিকের ক্যাপ্টেন’, ‘ম্যাকবেথ’, ‘টেমপেস্ট’, ‘নূরুলদীনের সারাজীবন’, ‘কবর দিয়ে দাও’, ‘গ্যালিলিও’ ও ‘কাঁঠাল বাগান’।

মঞ্চ নাটকে কেবল অভিনেতা নয়, একজন সফল নির্দেশকও ছিলেন আলী যাকের। তার অভিনীত বেশিরভাগ নাটকের নির্দেশনা তিনি নিজেই দিয়েছিলেন। তিনিই প্রথম ব্যক্তি, যিনি দর্শনীর বিনিময়ে নাটক প্রদর্শনীর যাত্রা শুরু করেন। যা ছিল দেশের থিয়েটার জগতের জন্য বিশাল মাইলফলক।

আলী যাকের দেশজোড়া খ্যাতি পেয়েছেন টিভি নাটকের জন্য। দেশের ইতিহাসে অন্যতম দুটি বিখ্যাত ও কালজয়ী নাটক ‘বহুব্রীহি’ ও ‘আজ রবিবার’-এ অভিনয় করেছেন তিনি। ‘বহুব্রীহি’ নাটকে তার মামা চরিত্র এবং ‘আজ রবিবার’-এ বড়চাচা চরিত্র দুটি তুমুল জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। যার ফলে দর্শকদের কাছে তিনি এখনো বড়চাচা নামেও পরিচিত।

এছাড়াও আলী যাকের অভিনয় করেছেন ‘একদিন হঠাৎ’, ‘নীতু তোমাকে ভালোবাসি’, ‘পাথর সময়’, ‘অচিনবৃক্ষ’, ‘আইসক্রিম’, ‘পান্ডুলিপি’, ‘গণি মিয়ার পাথর’ ইত্যাদি টিভি নাটকে।

চলচ্চিত্রে খুব বেশি অভিনয় করেননি আলী যাকের। সর্বসাকুল্যে তার অভিনীত চলচ্চিত্রের সংখ্যা চারটি। এগুলো হচ্ছে- ‘আগামী’, ‘নদীর নাম মধুমতী’, ‘লালসালু’ ও ‘রাবেয়া’। চলচ্চিত্রের সংখ্যা অল্প হলেও আলী যাকের তার অভিনয়ে উজ্জ্বল।

মঞ্চনাটকে অসামান্য অবদান, বর্ণিল অভিনয় জীবন; এসবের জন্য আলী যাকের পেয়েছেন বহু পুরস্কার ও সম্মাননা। ১৯৯৯ সালে তিনি দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা একুশে পদকে ভূষিত হন। এছাড়াও পেয়েছেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি পুরস্কার, বঙ্গবন্ধু পুরস্কার, মুনীর চৌধুরী পদক, নরেন বিশ্বাস পদক ও মেরিল-প্রথম আলো আজীবন সম্মাননা পুরস্কার।

ব্যক্তিগত জীবনে আলী যাকের বিয়ে করেছেন সারা যাকেরকে। তিনিও একজন গুণী অভিনেত্রী। সেই সঙ্গে সফল ব্যবসায়ীও। এ দম্পতির এক পুত্র ও এক কন্যা সন্তান রয়েছে। এর মধ্যে পুত্র ইরেশ যাকের দেশের গুণী অভিনেতা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত আর কন্যার নাম শ্রিয়া সর্বজয়া।

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন