রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ৮ কার্তিক ১৪২৮ , ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

শিল্প-সংস্কৃতি

চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন ড. ইনামুল হক

নিউজজি ডেস্ক ১২ অক্টোবর, ২০২১, ১৬:৪৩:০৫

95
  • ড. ইনামুল হক। ছবি: ইন্টারনেট

রাজধানীর বনানী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন একুশে পদকপ্রাপ্ত খ্যাতিমান অভিনেতা, নাট্যকার, লেখক ও শিক্ষাবিদ ড. ইনামুল হক। বাদ জোহর তাকে বনানী কবরস্থানে চতুর্থ নামাজে জানাজা শেষে দাফন করা হয়।

সকালে তার মরদেহ নেয়া হয়েছিল কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে ইনামুল হকের মরদেহ নেয়া হয়েছিল বুয়েটে। সেখানকার মাঠে নামাজে জানাজা সম্পন্ন হয়েছিল।

শহীদ মিনারে ড. ইনামুল হকের মরদেহে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে এসেছিলেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাসান মাহমুদ, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পক্ষে অসীম কুমার উকিল ও সংসদ সদস্য মেহের আফরোজ চুমকী, নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নুর তাপসসহ অনেকে।

শেষ শ্রদ্ধা জানাতে এসে তথ্যমন্ত্রী বলেন, শিক্ষকতার পাশাপাশি ইনামুল হক আমাদের সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে সমৃদ্ধ করে গেছেন, বহু কালজয়ী নাটকের স্রষ্টা তিনি, বহু কালজয়ী নাটকে তিনি অভিনয় করেছেন। একইসঙ্গে চলচ্চিত্রও নির্মাণ করেছেন। তার মতো এমন একজন গুণী মানুষের হঠাৎ প্রস্থান, সত্যিকার অর্থেই এটি জাতির জন্য বেদনার, আমাদের সবার জন্য বেদনার।

বাংলাদেশ বেতার-টেলিভশন শিল্পী সংস্থা, বাংলাদেশ শিশু একাডেমি, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, টেলিভিশন নাট্যকার সংস্থাসহ বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক এবং সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

অভিনেতা-নাট্যকার ড. ইনামুল হক সোমবার (১১ অক্টোবর) দুপুরে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান। সন্ধ্যায় একুশে পদক প্রাপ্ত এ গুণী অভিনেতার বেইলি রোডের বাসায় প্রথম নামাজে অনুষ্ঠিত হয়। পরে ৭টার দিকে শিল্পকলা একাডেমিতে দ্বিতীয় নামাজে সম্পন্ন হয়।

ড. ইনামুল হকের জন্ম ১৯৪৩ সালের ২৯ মে ফেনী সদরের মটবী এলাকায়। তার বাবার নাম ওবায়দুল হক ও মা রাজিয়া খাতুন। ফেনী পাইলট হাইস্কুল থেকে এসএসসি, ঢাকার নটরডেম কলেজ থেকে এইচএসসি এবং পরবর্তীকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগ থেকে তিনি অনার্স ও এমএসসি সম্পন্ন করেন। পরবর্তীতে মানচেস্টার ইউনিভার্সিটি থেকে পিএইচডি লাভ করেন।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনি দীর্ঘ ৪৩ বছর শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত থাকার সময় ১৫ বছর রসায়ন বিভাগের চেয়ারম্যান এবং দুই বছর ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ডিন হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। নটরডেম কলেজে পড়াশোনাকালীন তিনি প্রথম মঞ্চে অভিনয় করেন।

ফাদার গাঙ্গুলীর নির্দেশনায় তখন তিনি ‘ভাড়াটে চাই’ নাটকে প্রথম অভিনয় করেন। ১৯৬৮ সালে প্রতিষ্ঠিত ‘নাগরিক নাট্যসম্প্রদায়’র অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন তিনি। দলটির ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন ড. ইনামুল হক। এই দলের হয়ে প্রথম তিনি মঞ্চে অভিনয় করেন আতাউর রহমানের নির্দেশনায় ‘বুড়ো শালিকের ঘাড়ে রো’ নাটকে।

নিউজজি/রুআ

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন