বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১, ১২ শ্রাবণ ১৪২৮ , ১৭ জিলহজ ১৪৪২

দেশ

রংপুরে তিস্তার পানি বৃদ্ধিতে হাজার পরিবারের ভোগান্তি

এস.এম জাকির হুসাইন, রংপুর ২২ জুন, ২০২১, ১৭:৪৭:১৫

  • ছবি : নিউজজি

রংপুর: গত কয়েকদিনের ঝিরঝির বৃষ্টিপাত ও হঠাৎ উজানের ঢলে তিস্তার অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধি হয়েছে। ফলে আবারও আকস্মিক পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় গংগাচড়া উপজেলার তিস্তা তীরবর্তী চরাঞ্চলের কিছু এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

সোমবার (২১ জুন) ও মঙ্গলবার (২২ জুন) সকাল থেকে লক্ষীটারী ইউনিয়ন এর কতেক সুত্র থেকে এ তথ্য পাওয়া যায়। এতে চরাঞ্চলের ৭টি ইউনিয়নে প্রায় ১৫ শ অধিক পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। প্লাবিত এলাকা পরিদর্শন করেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মুনিমুল হক।

ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হাদী জানান, ইউনিয়নের পশ্চিম ইচলী, মধ্য ইচলী, বাঘেরহাট আশ্রায়ন ও জয়রামওঝা গ্রামের প্রায় ৩৫০ পরিবার আকস্মিক বন্যায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

কোলকোন্দ ইউনিয়নের বিনবিনা গ্রামবাসীরা জানান, গত ২০ জুন দিনগত রাত থেকে তিস্তার পানি বৃদ্ধি পায়। এর কিছুদিন আগেও পলিতে ভরা তিস্তার বুকে পানি বৃদ্ধির ফলে প্রবল স্রোতের কারনে বিনবিনা এলাকায় সদ্য নির্মিত একটি উপ-বাঁধের প্রায় ১৫০ মিটার নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। প্রায় ৫০০ মিটার দৈর্ঘের বাঁধটি ইউপি চেয়ারম্যান সোহরাব আলী রাজুর নেতৃত্বে স্থানীয় জনগণের সহযোগীতায় নির্মাণ করা হয়েছিল।

কোলকোন্দ ইউপি চেয়ারম্যান জানান, বাঁধটি ভেঙে যাওয়ার ফলে সামান্য পানি বৃদ্দি পেলেই তিস্তার পাড় পানিতে তলিয়ে যায় বিনবিনা গ্রামের শতাধিক পরিবারের বসতবাড়ি।

এছাড়াও বন্যার ফলে নোহালী ইউনিয়নের চর বাগডহরা, মিনা বাজার, আলমবিদিতর ইউনিয়নের ব্যাংক পাড়া, লক্ষীটারী ইউনিয়নের ইচলী, বাগের হাট, জয়রাম ওঝা, চল্লিশ সাল, গজঘন্টা ইউনিয়নের ছালাপাক, মর্ণেয়া ইউনিয়নের বড় রূপাই, ছোট রূপাই নরসিংহসহ বেশকটি এলাকা প্লাবিত হয়ে পড়ে।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান হাবীব জানান, বৃষ্টির ও উজানের ঢলে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে, আবার কমতেও শুরু করেছে।

 

নিউজজি/এসএম

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
        
copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers