বুধবার, ২৪ জানুয়ারি ২০১৮, , ৬ জুমাদিউল আউয়াল ১৪৩৯

সাহিত্য
  >
কবিতা

অন্ধ নাবিক

লুৎফর হাসান নভেম্বর ৫, ২০১৭, ১৭:১৬:৪৬

  • অন্ধ নাবিক

খাচ্ছো ঘুমাচ্ছো করছো স্নানরত অবস্থায় সহবাস, তোমাদের যৌথ খামার থেকে ভেসে আসছে স্বাভাবিকতার আতর জীবন, সৌরভ এসে লুটিয়ে পড়ছে গলিতে, মোড়ে, রাজপথে ও ট্র্যাফিক সিগন্যালে, আর আমি বাসের ভাঙা জানালায় তোমার খসে যাওয়া বক্ষবন্ধনীর মতো ঢিলেঢালা নভেম্বরের সকাল দেখে জেনে যাই – পৃথিবীর কোনও উৎসবের আমন্ত্রণপত্রে লেখা থাকে না আমার নাম।
 
ভারী তোয়ালে ঘষে ঘষে উজ্জ্বল হয়ে যাওয়া উপাসনা পূর্ব সেবাদাসীর অক্ষত সুডৌল স্তনের মতো উদ্ভাসিত হবে প্রথম বিকেল, হাত নেড়ে দেবে তাকে আকাশে বিদায়, ঘাড় কাঁত করে দেখে নেবে মেঘের দেশের রাজপুত্তুর, তারপর পৌঁছে সে জানাবে ঠিকঠাক আর আমাকে নাড়বে কড়া, সবুজ অবসাদের আঙুল ইশারায় বলবে ‘ফ্রি আছো? দেখা হচ্ছে কখন?’ আর আমি অমনি কাতর শিশু যেন বহুকাল খাইনি দুধ আপাতত তাই চেটেপুটে অস্থির এই বার্লি সুজি।
 
ফের ঘনাবে সপ্তাহ, তোমার ঘরে আবার নবান্নের হাওয়া, হেমন্তের নরম সন্ধ্যায় তুমি বদলে নেবে খুব দামি অন্তর্বাস, চোখে নেবে কাজলের বসন্ত, তলপেটে কড়া পারফিউম আর তুমি হবে নির্মম ও কঠিন খুব কেবল আমার এদিকটায়, কী ভীষণ নির্ভরতায় লিখে দেবে সুবর্ণ বার্তা এক ‘কিছু লিখো না আর, ও আছে, ওর ভারী মুখ আমাকে রাখে মন্দ ভীষণ’।
 
আমি আবার একলা ফাগুন, খা খা চৈত্রের হাহাকার, আমার মাঠে প্রান্তরে আর কোনো পাখির উড়ে যাওয়া দেখি না, তুমি সব শোধ করে এসে যখন বলো ‘কেন গাইছো না গান, কিছু লিখছো না কেন কবিতায়’। আমি তোমার থতমত ঠোঁটের দিকে চেয়ে দিতে পারি না উত্তর, চিৎকারে জানাতে পারি না ধ্রুব সত্য সেই ‘আজন্ম আমি এক অন্ধ নাবিক, ঢেউয়ে ঢেউয়ে খুঁজে গেছি কুমারী ঝিনুক’।
 
 

নিউজজি/এসএফ

 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
copyright © 2016 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers