বুধবার, ২৪ জানুয়ারি ২০১৮, , ৬ জুমাদিউল আউয়াল ১৪৩৯

সাহিত্য
  >
কবিতা

অমিত গোস্বামীর ৩টি কবিতা

 জুলাই ১৩, ২০১৭, ১২:৩৯:০০

  • অমিত গোস্বামীর ৩টি কবিতা

টান

কেন যে এমন টানে বেঁধেছ আমাকে! অন্ধকারজুড়ে

শূন্যপ্রান্তরে দাঁড়িয়ে ভেবেছি- এ দেশ আমার সততঃ,

আঁকড়ে ধরেছি দুই হাতে, উজার করেছি প্রেম, স্নেহ,

সময়ের দেহ ঠেলে স্থির হয়ে যাওয়া নাবিকের মতো।

পদ্মার ওপার থেকে উঠে আসে মেঘ ডিঙি টলমল,

সময় হাওয়ায় ওড়ে, বিদীর্ণ দেশ মেলে ধরে ডানা,

ভালোবাসা মুছে দিতে পারে হিংসা ও দ্বেষের বপন

কে তবে নিদান জানে? গাঁথা থাকে হৃদয়ের হিমসীমানা।

আমি ছুঁতে চাই তীব্রতর আত্মীয়তা, স্রোত-নদী-মাঠ,

জেগে ওঠে পদাবলি - যাপনের সুর - ভোরের আজান

আমার হৃদয়ে বাস কার? বুনে চলে রাত্রির শরীর!

দেশ তবে খুঁজে মরি কেন? কেন করি দেশেরই সন্ধান?

আড়াল রচনা করে তুমি ব্যথাতুর কতদিন আর

বেঁধে রেখে দেবে, রেখে দেবে ফ্যাসিবাদী বিষকাঁটাতার?

২.

ভালোবাসা এখনো...

তোমাকে সান্ত্বনা দেবো, আমার সে শব্দ জানা নেই,

অশ্রু বড় আন্তরিক,

স্পর্শ করিনি, যত দোষ, জানি তুমি দেবে আমাকেই।

একবার ফিরিয়ে চোখ, দ্যাখো, শুধু প্রজ্ঞাশূন্য মন,

কেন যে বোঝো না তুমি!

কোন কারাগারে আমি অন্তরীণ হয়ে আছি এতক্ষণ।

আমি যে একাই জ্বলি কী করুণ বিষের জ্বালায়,

কিছু কথা বাকি ছিল,

তবু আমি ফিরে যাবো লালবাগে, পুরোনো ঢাকায়।

বৃষ্টি নেমেছে। নয়? পৃথিবী কি জাল দিয়ে ঘেরা?

শহর কি বলেছিল

তুমি মেঘ হলে আশঙ্কা মুছে দেবে বৃষ্টি ফড়েরা?

আলো কাঁপে, হৃদয়ে রেখেছি হাত কোন ঈশ্বরীর,

সব ভুলে বলে ফেলি ভালোবাসা এখনো গভীর।

৩.

বাজনদার

লোকটা দোতারা বাজাতো ভাঙা ফুটপাথে,

বাউলগানের সুর, কোনো গান গাইত না,

পয়সা চাইত না, বাজিয়েই যেত শুধুশুধু,

মানুষ শুনত, সময় গুনত, চলে যেত,

তাতে লোকটার কোনো ভ্রুক্ষেপ ছিল না,

সকাল থেকে বিকেল, বিকেল গড়িয়ে রাত,

কখনো দ্রুত কখনো আস্তে বাজাত সে,

কখনো কেউ দু-চার টাকা দিত, সে নিত,

কিন্তু কেন যে বাজাতো আমি কখনো বুঝিনি,

একদিন শুনতে শুনতে বিভোর হয়ে গেছি,

লোকটা বাজনা থামালো, জিজ্ঞেস করল,

‘রোজরোজ কেন আমার বাজনা তুমি শোনো!

কী পাও শুনে! কেন কাছে আসো বারেবার!'

বলে সে হনহন করে দিগন্তে হেঁটে গেল,

পরের দিন দেখি সে আর আসেনি, 

পেশাদার ভিখারি বসেছে এক সেইখানে,

চুপিচুপি তাকে বলি, ‘বাজনদার কই’?

‘জানি না কোথায় গেছে, জেনে কী লাভ হবে!’

‘তবু বলো, যদি জানো সে কোথায় গেল’,

মুখ তুলে তাকালো সে, ধীরে ধীরে বলল-

ভালো করে দ্যাখো, আমি সেই বাজনদার,

আজ হাতে বাজনা নেই, তাই ভিখিরি, 

মনন হারিয়ে গেলে মানুষ বড়ো ভিখিরি হয়ে যায়।

নিউজজি/এসএফ/এমকে

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
copyright © 2016 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers