বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, , ৪ জুমাদাউস সানি ১৪৩৯

বিদেশ

হামাস-ফাতাহ দ্বন্দ্বে গাজায় মানবিক সংকট

নিউজজি ডেস্ক ১৩ ফেব্রুয়ারি , ২০১৮, ১৯:১৫:২৫

  • ছবি-সংগৃহীত

ঢাকা: দীর্ঘ এক দশকের বেশি সময় ধরে ইসরাইল ও মিসরের অবরোধের মুখে পড়ে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় উন্মুক্ত কারাগারে পরিণত হয়েছে ফিলিস্তিনের গাজা। তার ওপর ফিলিস্তিনের ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল ফাতাহ ও জাতিমুক্তি আন্দোলনের সংগঠন হামাসের দ্বন্দ্বের কারণে অবস্থা ভয়াবহ রূপ নিয়েছে।

হামাসকে চাপে রাখতে গাজার বিদ্যুৎ সুবিধা বন্ধ করাসহ সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন কেটে নেওয়া আদেশ দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস। ফাতাহ পরিচালিত ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের অধীনে কর্মরত গাজার অনেক বাসিন্দার বেতন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

পাশাপাশি ইসরাইল ও মিসর গাজায় পণ্য আমদানি-রফতানির সুড়ঙ্গ পথ বন্ধ করে দেওয়ায় ভেঙে পড়েছে গাজার অর্থনীতি ব্যবস্থা। আর এতে ২০ লাখ অধিবাসীর ভূখণ্ড গাজায় দেখা দিয়েছে চরম মানবিক বিপর্যয়।

ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষের মূল শক্তি হলো ফাতাহ। দলটি ইসরাইলি দখলদার সরকারের সমর্থনপুষ্ট। অন্যদিকে হামাস ফিলিস্তিনের স্বাধীনতার জন্য দীর্ঘদিন সশস্ত্র সংগ্রাম করে আসলেও ২০০৭ সালে নির্বাচনে অংশ নেয়। গাজায় নির্বাচনে জয়লাভের পর তারা সেখান থেকে ফাতাহর নিয়ন্ত্রণ কেড়ে নেয়।

সে সময় থেকেই হামাস ও ফাতাহর মধ্যে টানাপোড়েন বৃদ্ধি পেতে থাকে। আর তখন থেকে গাজায় অবরোধ আরোপ করে রেখেছে ইসরায়েল ও মিসর। তারা গাজায় যেকোনো পণ্যসামগ্রী আমদানি-রফতানিতে কড়া নিয়ন্ত্রণ আরোপ করে। ইসারায়েল মনে করে, এতে হামাস চাপে থাকবে আর গাজাবাসীও নিষেধাজ্ঞা শিথিলের আশায় তাদের ক্ষমতা থেকে উৎখাত করবে।

নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর থেকে হামাস এতদিন সুড়ঙ্গ ব্যবহার করে পণ্যসামগ্রী আনা-নেওয়া করতো। সুড়ঙ্গ দিয়ে মিশর থেকে চোরাচালানের মাধ্যমে আনা পণ্যসামগ্রীর ওপর নির্ধারিত করই ছিল তাদের আয়ের উৎস। তবে মিশরে আল সিসি ক্ষমতায় আসার পর চোরাচালানের ব্যবহৃত এসব সুড়ঙ্গ বন্ধ করে দেয়। কারণ হামাসের সঙ্গে মিসরের বিরোধী দল মুসলিম ব্রাদারহুডের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। সিসির এমন পদক্ষেপের কারণে হামাস ‘সিনাই টানেল’ বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছে।

 

নিউজজি/এস দত্ত

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
copyright © 2016 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers