মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারি ২০১৮, , ৫ জুমাদিউল আউয়াল ১৪৩৯

ফিচার

কুয়াশার কালে মন, ছুটে যাক ভাটির দেশে

নিউজজি ডেস্ক জানুয়ারী ১১, ২০১৮, ০১:১৬:৩৩

  • কুয়াশার কালে মন, ছুটে যাক ভাটির দেশে

মাথার উপর ঘন নীলের উদার আসমান, চারদিকে শান্ত জলরাশি। স্বচ্ছ নদীমাতৃক বাংলাদেশের অপরূপ প্রতিচ্ছবি। নৌকা নিয়ে গোটা বিল চষে বেড়ানো, পাশেই উড়ন্ত বড় বকের ঝাঁক, নিচে বসা কালো লেজ জৌরালি ও দাগিলেজ জৌরালির ঝাঁক। চারপাশ জুড়ে চেনা-অচেনা পাখিদের মিলন মেলা শীতের ভ্রমণের অন্যতম এক আকর্ষণ। শীতের সময়ে বিভিন্ন দেশ থেকে উড়ে আসা পাখিদের কলতানে মুখরিত হয়ে থাকে আমাদের দেশের এসব হাওর অঞ্চল। শীতের সময়ে এসব হাওরের রূপ-বৈচিত্র্য দেখার জন্য ঘুরে আসতে পারেন।

ঢাকা থেকে সড়ক ও রেলপথে সরাসরি সিলেটে যেতে হবে। ঢাকার ফকিরাপুল ও সায়েদাবাদ থেকে বিভিন্ন পরিবহন পেয়ে যাবেন। ভাড়া পড়বে ৩৫০-৫০০ টাকা। এ ছাড়া কমলাপুর থেকে মঙ্গলবার ও বুধবার ছাড়া প্রতিদিনই পেয়ে যাবেন পারাবত এক্সপ্রেস, জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস ও উপবন এক্সপ্রেস। ভাড়া ১৫০-৭০০ টাকা। সিলেট শহর থেকে যে কোনো স্থানেই ভ্রমণের জন্য বাস, সিএনজি, অটোরিকশা, রিকশা পেয়ে যাবেন।

এসব হাওরের আশপাশে থাকার জন্য তেমন কোনো ভালো ব্যবস্থা নেই। সারা দিন বেড়ানোর পর সিলেটের মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, শ্রীমঙ্গল শহরসহ আশপাশে অনেক হোটেল-মোটেল বা রিসোর্ট পাবেন। এসব হোটেল-রিসোর্টে ৫০০-৫০০০ টাকা পর্যন্ত ভাড়ায় রুম পাওয়া যাবে।

বাংলাদেশের একটি অন্যতম বৃহৎ মিঠাপানির জলাভূমি। পশ্চিমে ভাটেরা পাহাড় ও পূর্বে পাথারিয়া মাধব পাহাড় বেষ্টিত হাকালুকি হাওর সিলেট ও মৌলভীবাজার জেলার পাঁচটি উপজেলায় বিস্তৃত। ছোট-বড় প্রায় ২৩৮টিরও বেশি বিল ও ছোট-বড় ১০টি নদী নিয়ে গঠিত হাকালুকি হাওর বর্ষাকালে প্রায় ১৮ হাজার হেক্টর এলাকায় পরিণত হয়। থই থই জল আর হিজল বনের রূপকথার গন্ধ মিলবে হাকালুকিতে। ঘন কুয়াশার সকাল, তপ্ত দুপুর আর লাল গোধূলি এখন এই অপরূপের দেশে। ধানের ক্ষেত হাওয়ায় দোলে, জলাশয়ে ছোট্ট ডিঙি, রাখালের গরুর পাল নিয়ে হেঁটে চলা এ যেন সেই বাংলা, যা হারিয়ে যেতে বসেছে।

হাকালুকি হাওরে রয়েছে ২৭৬টির মতো ছোট-বড় গভীর-অগভীর বিল। কোন দিকে যে তার শেষ, হদিস করা যায় না। মাঝেমধ্যে সদ্য যৌবন পাওয়া হিজল বন। শিয়াল আর মেছো বিড়ালের বাড়ি এখানে। তবে সব কিছু ছাপিয়ে হাকালুকি বিখ্যাত পাখির জন্য। বিশেষ করে শীতের পাখি। হাকালুকি হাওরকে জীববৈচিত্র্যের ভাণ্ডারও বলা যায়। বিভিন্ন ধরনের উদ্ভিদ ও প্রাণী পাওয়া যায় এই হাওরে। হাওরে ৫২৬ প্রজাতির উদ্ভিদ, ১১২ প্রজাতির অতিথি পাখি, ৩০৫ প্রজাতির দেশীয় পাখি, ১৪১ প্রজাতির বন্যপ্রাণী ও ১০৭ প্রজাতির মাছের দেখা মিলবে।

হাওয়াবন্যা ছাড়াও হাওরখাল বিল ও পিংলা বিলে হাজার হাজার পাখির দেখা মিলবে। সবচেয়ে বেশি হাঁস দেখা যায় হাওরখাল বিলে। একসাথে এত হাঁস বসে থাকে যে টেলিস্কোপ লাগিয়েও গোনা যায় না। এগুলোর মধ্যে উত্তুরে ল্যাঞ্জাহাঁস, উত্তুরে খুন্তেহাঁস, গাডওয়াল হাঁস, খয়রা চকাচকি, পাতি চকাচকি, ফালকেট হাঁস, গিরিয়া হাঁস ও টিকি হাঁস অন্যতম।

মেঘালয়ের সুবিশাল ও বিস্তৃত পাহাড়ের হাজারো ছড়া ও বেশ কিছু ঝরনা হলো টাঙ্গুয়ার হাওরের পানির উৎস। শীতকালে এই হাওরে অনেক কান্দা বা পাড় জেগে ওঠে। পুরো হাওর অনেক বিলে ভাগ হয়ে যায়। তবে বর্ষাকালে এই হাওর যেন এক বিশাল সমুদ্র। আর সেই সমুদ্রের উত্তর পারে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে ভারতের মেঘালয়ের পাহাড়। স্থানীয় ভাষায় টাঙ্গুয়াকে বলা হয় নয় কুড়ি কান্দা, ছয় কুড়ি বিল। সুনামগঞ্জের সাহেববাজার ঘাট থেকে ইঞ্জিন নৌকা চারপাশের চৌহদ্দি ছাড়ানো সবুজের অপরূপ সৌন্দর্য আপনাকে নিউজিল্যান্ডের প্রকৃতিতে নিয়ে যাবে। মনে হবে যেন সুরমা নদীর ওপারেই মেঘালয়ের পাহাড় মেঘ কোলে নিয়ে অতিথির জন্য বসে আছে। যত দূর চোখ যায়, সবুজের মখমল আর স্বচ্ছ পানির সমুদ্র। নিচে নীলচে পানি, পানির নিচে শেওলার অস্তিত্ব পরিষ্কার বোঝা যায়। নলখাগড়ার ডগা ভেসে ভেসে ঢেউয়ের দোলায় নাচে হাওরজুড়ে।

ভারতের মেঘালয়ের খাসিয়া, জৈন্তা পাহাড়ের পাদদেশে সারি সারি হিজল-করচ শোভিত, পাখিদের কলকাকলি মুখরিত টাঙ্গুয়ার হাওর মাছ, পাখি এবং অন্যান্য জলজ প্রাণীর এক বিশাল অভয়াশ্রম। শীতকালে এখানে প্রচুর পরিযায়ী পাখি ভিড় জমায়। রয়েছে স্থানীয় অনেক পাখিও। নিয়মিত দেখতে পাওয়া যায় পানকৌড়ি, বেগুনি কালেম, বালিহাঁস, শঙ্খচিল, বিভিন্ন প্রজাতির বক, সারস, পাতি কুট, সরালি হাঁস, ডাহুক ইত্যাদি। এ ছাড়া অন্যান্য বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্যেও টাঙ্গুয়ার হাওর পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণ। এ ছাড়াও নলখাগড়া, দুধিলতা, নীল শাপলা, পানিফল, শোলা, হেলেঞ্চা, শতমূলি, শীতলপাটি, স্বর্ণলতা, বনতুলসী ইত্যাদিসহ ২০০ প্রজাতিরও বেশি গাছগাছালি। হাওর ছাড়াও মেঘালয়ের প্রাকৃতিক দৃশ্যগুলো অত্যন্ত মনোরম ও সুন্দর দৃশ্যগুলোর মধ্যে অন্যতম।

বাইক্কার বিল । চায়ের স্বর্গরাজ্য শ্রীমঙ্গলের পাশেই মাছ আর পাখির অভয়াশ্রম বাইক্কার বিল। ঢাকা থেকে হাইয়া হাওরের বাইক্কা বিলের দূরত্ব প্রায় ২০০ কিলোমিটার আর শ্রীমঙ্গল থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার। সিলেটের মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলার হাইল হাওরের পূর্ব পাশেই প্রায় ১০০ হেক্টর জলাভূমি নিয়ে অপরূপ সৌন্দর্যের এই বাইক্কা বিল। নদীমাতৃক বাংলাদেশের শীতের অতিথি পাখিদের মিলন মেলা ও অন্যতম অভয়াশ্রম। প্রতিদিন হাজার মাইল দূর থেকে এসে ভিড় করে অসংখ্য পরিযায়ী পাখি। সকাল-সন্ধ্যা এই অতিথি ও স্থানীয় পাখির ওড়াওড়ি আর কলকাকলিতে মুখর বিলটি হয়ে ওঠে পাখির রাজ্য। বাইক্কা বিলের মূল আকর্ষণ পরিযায়ী আর স্থানীয় পাখি। বিলের শুরুতেই দেখা যাবে দলে দলে পার্পল সোয়াম্প হেন বা কালেম। পাশেই হয়তো দেখবেন গ্রেট কর্মোরান্ট বা ছোট পানকৌড়ি, লিটল কর্মোরান্ট বা বড় পানকৌড়ির দল। শুধু পাখিই নয়, হাওরে মাছের রাজ্যেও রয়েছে অসংখ্য প্রজাতির মাছ। আইড়, মেনি, কই, ফলি, পাবদা, বোয়াল, রুই, গজারসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছেরও অভয়াশ্রম। এ ছাড়া এই বিলের দাপুটে পাখিরা হলো শঙ্খচিল, ভুবন চিল, পালাসী কুড়া ঈগল, গুটি ঈগল ইত্যাদি। শীতের এ সময়ে আরও দেখা মিলবে বিলের অতিথি পাখি সরালি, মরচেরং ভূতি হাঁস, গিরিয়া হাঁস আর ল্যাঞ্জা হাঁসের ভেসে চলা। বিলের মধ্যে অপেক্ষাকৃত দূরত্বে দেখা মিলবে মেটেমাথা টিটি, কালাপাখা ঠেঙ্গী গেওয়ালা বাটান ইত্যাদি। শীত এখনো জমে ওঠেনি। তবে জমে উঠতে শুরু করেছে পাখির মেলা। বিলের জলে পরিযায়ী পাখি মিলেমিশে একাকার হয়ে যায়। ভ্রমণপিপাসুদের বিলের পাখি উপভোগের জন্য দুটি পর্যবেক্ষণ বুরুজ আছে।

তাহলে আর দেরি কেন? শীতের আমেজ থাকতে থাকতেই যাত্রা শুরু করা যাক।

 

ছবি ও তথ্য – ইন্টারনেট ।

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
copyright © 2016 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers