সোমবার, ২২ জানুয়ারি ২০১৮, , ৪ জুমাদিউল আউয়াল ১৪৩৯

বিনোদন

‘বজলু চোর’ চরিত্রটি মানুষ অনেকদিন মনে রাখবে : নিথর মাহবুব

ফারুক হোসেন শিহাব  জানুয়ারী ১১, ২০১৮, ২১:০৪:৪৬

  • ‘বজলু চোর’ চরিত্রটি মানুষ অনেকদিন মনে রাখবে : নিথর মাহবুব

নিথর মাহবুব বাংলাদেশের মঞ্চ ও টিভি মিডিয়ার প্রতিভাবান অভিনেতা। বিশেষ করে একজন জনপ্রিয় মূকাভিনয়শিল্পী ও সংগঠক। পেশাগতভাবে তিনি একজন সাংবাদিক। সম্প্রতি বেসরকারি টিভি চ্যানেল দুরন্ত টেলিভিশনে প্রচারিত তার অভিনয়ে শিশুতোষ নাটক ‘টিরিকিটিটক্কা’ নাটকটি দর্শক-সমালোচকদের কাছে বেশ সমাদৃত হয়েছে। এ নাটকে ‘বজলু চোর’ চরিত্রে দাপুটে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে আলোচিত হয়ে ওঠেন নিথর মাহবুব। আজ দুরন্ত টেলিভিশনে প্রচার হবে নাটকটির শেষ পর্ব। নাটক ও ‘বজলু চোর’ চরিত্র নিয়ে নিউজজি২৪ডটকম-এর মুখোমুখি হয়েছেন সম্ভাবনাময় এ অভিনেতা। 
 
‘টিরিকিটিটক্কা’ নাটকের সাথে যুক্ত হলেন কীভাবে?
একদিন ধ্বনিচিত্রের সহকারী পরিচালক ফোনে জানান যে, তাদের চ্যানেলের জন্য নির্মাণাধীন শিশুতোষ একটি ধারাবাহিক নাটকে অভিনয়ের জন্য আমাকে মনোনীত করা হয়েছে। তখন আমি ভাবলাম যে, আমাকে তো এজন্য যথেষ্ট সময় দিতে হবে। কিন্তু সেটি কি সম্ভব? কেননা, আমি একটি প্রতিষ্ঠানে চাকুরীরত। তারপরও বাচ্চাদের নাটক হওয়ায় একবাক্যে রাজি হয়ে গেলাম। পরে তাদের অফিসে ডেকে নিয়ে স্ক্রিপ্ট দিয়ে বিস্তারিত জানানো হয়।
 
 
নাটকের পাণ্ডুলিপি পাওয়ার পর আপনার চরিত্র পড়ে কি মনে হয়েছিল?
যখন জানতে পারলাম নাটকটি বাচ্চাদের চ্যানেলের জন্য নির্মিত হবে তখনই মনে হয়েছিল ভালো কিছু হবে। পরে একজন চোরের চরিত্রে অভিনয়ের ব্যাপারটি জেনে অনেকটা রোমাঞ্চিত হলাম। শুটিংয়ে যখন দেখলাম সবাই বাহাবা দিচ্ছে তখন ভাবলাম নিশ্চয়ই ভালো হচ্ছে। 
 
এ নাটকের শুটিংয়ের অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?
শুটিয়ের প্রথমদিনেই আমার সাথে পরিচয় হয় নাটকের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ তিন চরিত্রের তিন বাচ্চার সূর্যমুখী, তুর্য এবং ইরার সাথে। প্রথম থেকে তারা এমনভাবে আমার সাথে মিশেছে যে আমরা সবাই মিলে খুবই আনন্দের সাথেই কাজটি করেছি। প্রত্যেকদিনের শুটিংই ছিল দারুণ উপভোগ্য।
 
 
নাটকে বজলু চোরের চরিত্রের সূত্রপাত ঘটে কীভাবে?
হ্যাঁ, বেশ মানবিকই বটে। নাটকে সূর্যমুখীর কাছে তারই রূপধরে ভিনগ্রহ থেকে ‘টিরিকিটিটক্কা’ নামের একটি এলিয়েন আসে। কিন্তু সে যে এলিয়েন এটি প্রথমে সূর্যমুখী বিশ্বাস করতে চায় না। সে বলে তুমি এলিয়েন না, তুমি আমার কল্পনা। তখন এলিয়েন বলে আমি যে কারোই রূপ নিতে পারি এবং ভবিতব্য বলে দিতে পারি। এমনি করে ভবিতব্যও বলে দেয়। বলে- কিছুক্ষণের মধ্যেই তোমাদের বাসায় একজন চোর আসবে এবং টাকা ও মোবাইল চুরি করবে। তার কথা মত ঠিকঠিক তাই ঘটে। এমনি নানান ঘটনায় বজলু চোর হয়ে ওঠে নাটকের জনপ্রিয় একজন। 
 
চোর হলেও নাটকে আপনার চরিত্রটি তো অনেকটা ইতিবাচক-
আসলে আমরা সাধারণ চোর বলতেই নীতিবাচক বুঝি। কিন্তু এই নাটকে বজলু চোরকে কেশ ইতিবাচক এবং অমানবিক করে উপস্থাপন করেছেন নাট্যকার। কারণ বজলু চোর হচ্ছে অসংখ্য চোরের সরদার। কিন্তু তার মুখ দিয়েই অনেক মানবিক ও শিক্ষামূলক বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। ‘বজলু’ চোর হলেও একটা সময় চুরি ছেড়ে দেয় এবং তার অনুসারীদের চুরি ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশ দেয়। এমনি নানা রসায়নে চরিত্রটি আবৃত হয়েছে। বজলু চোর চরিত্রটি মানুষ অনেকদিন মনে রাখবে।
 
 
যেহেতু বাচ্চাদের নিয়ে এ নাটক, সুতরাং নাটকটি তাদের কতটা বিনোদন এবং বার্তা দিতে পেরেছে বলে মনে করেন?
দুরন্ত টেলিভিশন যেহেতু অনেকগুলো চ্যানেলের মধ্যে শুধুমাত্র শিশু-কিশোরদের নিয়ে একটি নতুন চ্যানেল। সুতরাং এর শুরুটা অত্যন্ত চ্যালেঞ্জিংই বটে। কিন্তু শুরুতেই তারা ভালো কিছু অনুষ্ঠান এবং ‘টিরিকিটিটক্কা’র মত নাটক প্রচার করতেই সকল শ্রেণির দর্শকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়েছে। বিশেষ করে বাচ্চাদের কাছে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এই নাটকে তারা গল্পছলে দেশত্ববোধের অনেক বিষয়াদি জানতে পেরেছে। পাশাপাশি নৈতিক অনেক বিষয়সহ বেশ বিনোদনও উপভোগ করেছে। 
 
কখন বুঝতে পেরেছেন নাটকটি বিশেষ করে ‘বজলু চোর’ চরিত্রটি দর্শকদের হৃদয়গ্রাহী হয়ে উঠেছে?
প্রথম দু-তিনটি পর্ব দেখার পরই মনে হয়েছে কাজটি আসলেই ভালো হয়েছে। এবং আস্তে আস্তে পরিচিতজনদের কাছ থেকে ফোন আসতে শুরু হলো। সবাই উইশ করা আরম্ভ করলো। এমনকি অপরিচিত বাচ্চারা ও তাদের অবিভাবকরা রাস্তায় দেখেই কথা বলতে চাইছে এবং চরিত্রটি ভালো লাগছে বলে জানায় তখন মনটা ভরে উঠলো। আসলে আমাদের নাটকের অনেকদিন দর্শক হৃদয়ে দাগ কাটার মতো কোনো চরিত্র বেরিয়ে আসার ঘটনা খুব কমই ঘটেছে। বিশেষ করে অনেক বছর আগে আমাদের মাননীয় সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর ‘বাকের ভাই’ চরিত্রে অভিনয় করে নন্দিত হয়েছিলেন। সেটি আজও মানুষ মনে রেখেছে। অনেকদিন পর হলেও ‘বজলু চোর’ চরিত্রটি দর্শক মনে জায়গা করে নিয়েছে; এজন্য আমি অনেক আনন্দিত। 
 
 
অনেকেই মনে করছেন আপনি বিনোদন সাংবাদিক এবং একই সাথে অভিনেতা হওয়ায় নাটকটি বেশ প্রচার পেয়েছে। পাশাপাশি একদিনে অনেকবার নাটকটি পুনঃপ্রচার হওয়ায় এই নাটক ও বজলু চোর চরিত্র আলোচনায় এসেছে। বিষয়টিকে কিভাবে দেখছেন?
প্রথমত নাটকটি দর্শক গ্রহণ করেছে। শুধু বাচ্চারাই নয়, অনেক অভিভাবকরাও মনোযোগ দিয়ে প্রতিটি পর্ব দেখেছেন। তাছাড়া যে কোনো অনুষ্ঠানই প্রচারের ক্ষেত্রে এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবারই একটা দায়িত্ব থাকে। আমি হয়তো দীর্ঘদিন বিনোদন সাংবাদিকতা করার কারণে অনেক সহকর্মীরা বিষয়টিকে আন্তরিকতার সাথেই গুরুত্ব দিয়েছে। মূল কথা হলো প্রত্যেকেই আমাদের সঙ্গে ছিলেন, আছেন এবং থাকবেন। এজন্য সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা।
 
 

নিউজজি/এসএফ

 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
copyright © 2016 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers