বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, , ৪ জুমাদাউস সানি ১৪৩৯

অর্থ ও বাণিজ্য

শীতের বাঁধা মানছে না মেলার আনন্দ

নিউজজি প্রতিবেদক ১২ জানুয়ারি , ২০১৮, ১৭:০৪:৫৪

  • শীতের বাঁধা মানছে না মেলার আনন্দ

ঢাকা: ২৩তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা শুরু হওয়ার পরে দ্বিতীয় ছুটির দিন আজ। ছুটির দিনে সাধারণত উপচে পড়া ভিড় থাকে বাণিজ্য মেলায়। কিন্তু, এবার একটু ব্যতিক্রম মনে হচ্ছে। তীব্র শীতে ছুটির দিনেও ঠিক জমে উঠছে না মেলা।

মেলায় আসা ক্রেতা-দর্শনার্থীদের অনেকেই কেনাকাটা বাদ দিয়ে বসে আছেন টাওয়ারের পাদদেশে। শীত নিবারণে রোদে গা গরম করছেন তারা। এর মধ্যেই সানশাইন প্যাভিলিয়ন থেকে ভেসে আসছে ধামাকা অফারের আওয়াজ। ক্রেতা যারা এসেছেন প্রকৃতিতে বইতে থাকা বাতাসের বিপরীতে চলতে পারছেন না তারা। বাধ্য হয়ে পছন্দমতো কোনো স্থানে বসে আড্ডা জমাচ্ছেন।

প্রতিবছর বাণিজ্য মেলায় ইরাক, ইরান, তুরস্কসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর কার্পেট আর গৃহসজ্জার সামগ্রীর বেশ কদর থাকে। এবারও মেলায় বসেছে মধ্যপ্রাচ্যের নান্দনিক কারুকাজ আর নিজস্ব শিল্পমানের গৃহসজ্জার বাহারি সব পন্যের দোকান। তবে এখনও জমে ওঠেনি বিদেশী এসব দোকানের কেনাবেচা। দেশের ক্রেতারা বলছেন গত বছরের তুলনায় এবার এসব পন্যের দাম অনেক বেশী, আর সামনের দিন গুলোতে বেচাকেনা বাড়ার আশা করছেন বিক্রেতারা।

 

লাল-নীল বাতির নিয়ন আলোর এমন মোহময়তায় আটকে যাবে যে কারও চোখ। তুরস্কের কারুশিল্পের নান্দনিক নকশা, কারুকাজ আর নির্মাণশৈলীর কারণে ঝাড়বাতি নজর কাড়ছে মেলায় আসা ক্রেতা-দর্শনার্থীদের।

আভিজাত্য আর ঐতিহ্যের বুননে এবারও মেলায় রয়েছে ইরাক, ইরান, মিশর ও মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশের পশমি কার্পেট। তুর্কি লোকশিল্পের নকশায় গৃহসজ্জার বিভিন্ন পণ্য, শো-পিস, কারুকার্য খচিত পণ্যগুলো রয়েছে দর্শনার্থীদের পছন্দের প্রথম তালিকায়। তবে এসব পণ্যের আকাশ ছোঁয়া দামের কারণে সাধ ও সাধ্যের মেল বন্ধন হচ্ছেনা বলে জানান ক্রেতারা।

ছুটির দিন হওয়ায় অফিস ও কাজের চাপ না থাকায় অনেকেই পরিবার-পরিজন নিয়ে চলে আসেন মেলায়। স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরাও দলবেঁধে মেলায় চলে আসেন। নানা বয়সী আর বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের উপস্থিতিতে মুখর হয়ে ওঠে পুরো মেলা প্রাঙ্গণ। ক্রেতাদের ভিড়ে হিমশিম খেতে হয় প্যাভিলিয়ন ও স্টলে দায়িত্বরতদের।

কিন্তু, এবার একটু ব্যতিক্রম, গত কয়েকদিন ধরে সারাদেশের পাশাপাশি রাজধানীতেও দেখা দিয়েছে কনকনে শীত। এর ফরে এই কনকনে শীতে অনেকেই ঘরথেকে বেড় হচেছেনা। তবে বিক্রেতারা হাল ছাড়তে রাজি নন। তারা বলছেন, সকালের দিকে না হলেও বেলা গড়ার সঙ্গে ক্রেতা ও দর্শনার্থী বাড়বে।

 

নিউজজি/ এসআই

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

copyright © 2016 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers