বুধবার, ২৪ জানুয়ারি ২০১৮, , ৬ জুমাদিউল আউয়াল ১৪৩৯

দেশ
  >
জনপদ

যশোরে মানুষ গড়ার কারিগর সায়ফুল আলম

হাবিবুর রহমান, যশোর ১২ জানুয়ারি , ২০১৮, ১১:৩০:৫৭

  • ছবি : নিউজজি

যশোর: আমাদের সমাজে অনেক ভালো মানুষ রয়েছেন। তারা নিজ চেষ্টায় দেশ এবং দেশের মানুষের কল্যাণে কাজ করে থাকেন। সর্বদা শুধু নিজের জন্য নয় তারা সমাজের অন্যের ভালোর জন্যও কাজ করেন। তাদের চিন্তা-চেতনায় থাকে সবসময় মানুষের উন্নয়ন। সারাটা জীবন কাটিয়ে দেন মানুষের কল্যাণে।

সেই সকল মানুষকে আমরা আলোকিত মানুষ হিসেবেও আখ্যায়িত করে থাকি। সেই আলোকিত মানুষ আমাদের সমাজে খুব বেশি যে রয়েছেন তা কিন্তু নয়। হাতেগোনা যে কয়জন রয়েছেন, তাদের মধ্যে টি,এম, সায়ফুল আলম অন্যতম।

একমাত্র মনের ইচ্ছা, শক্তি, সামর্থ্য এবং নিজ দায়বদ্ধতা থেকেই কাজ করে থাকেন সমাজ ও দেশের জন্য। তিনি চেষ্টা করে নিজের ভাগ্য বদল করেছেন এবং বদল করেছেন হাজার হাজার অসহায় দারিদ্র মানুষের ভাগ্য। একজন আত্মপ্রত্যয়ী, দৃঢ়চেতা, প্রাজ্ঞ, সফল শিক্ষক। সততা, মেধা, নিষ্ঠা, অধ্যবসায় এবং দূরদৃষ্টির কারণে তিনি প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন।

ছোট বেলা থেকেই স্বপ্ন দেখতেন, স্বপ্নকে ভালবাসতেন, স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে তার পথচলা। শৈশব, কৈশর অন্যসব শিশুদের মত গ্রামে কাটলেও তার চেষ্টায় সফলতা ছুয়েছে। সেই গ্রাম থেকে শহরে আসা অন্য সবের মত কিন্তু তার চিন্তা চেতনা, স্বভাব সুলভ আচরণ দূরদৃষ্টি, তার কাব্যিক চলাফেরা, তার লেখনি আজ তাকে প্রতিষ্ঠিত করছে।

১অক্টোবর ১৯৭২ সনে যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলায় মাসনা গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন সায়ফুল আলম। পিতা মরহুম ডাক্তার সাদেক আলী তরফদার, মাতা আমেনা বেগম। লেবুগাতি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক।

ছোটবেলা থেকেই সকলের সাথে মেলা মেশা, অন্যর বিপদে এগিয়ে যাওয়া, মানুষের বিপদে সহযোগীতা করা ছিল তার নিত্য দিনের কাজ। নিজ উপজেলা মনিরামপুরের সকলের কাছে একজন পরিচিত সমাজসেবক হিসেবে।

তিনি অত্র এলাকায় মনিরামপুর উপজেলা, সামাজিক সংগঠনে সভাপতি। এলাকায় দুস্থ্য অসহায় পরিবারকে। মসজিদ, মন্দির, মাদ্রাসা স্কুল সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে আর্থিক সহযোগীতা করেন। এলাকার মানুষকে ভালবাসে বলে অত্র ইউনিয়নের অসহায় ছিন্নমুল দের লেখা পড়ার খরচ বহন করেন। এলাকার মানুষ কে ভাল বাসে বলে এমন জনহিতর কাজ করেন তিনি। তার মেধা, দক্ষতার কারনে তার অন্য একটি পরিচয়ে সকলের কাছে তিনি বেশ পরিচিত।

তিনি একজন লেখক, কবি, তার কবিতা বাস্তববাদী মানুষ কে কাছে টানে। সংগীত প্রিয় প্রতিভাবান ব্যাক্তি, একজন সফল শিক্ষক। তার চলার পথে সুখে দুখে পাশে থেকে সহযোগিতা করছেন একজন তিনি তার সহধর্মিণী নাসরিন আক্তার। সকল কাজে তার স্ত্রীর উৎসাহ ছিল সবসময়। সফলতা গল্পগাথা জীবনে সহধর্মিণী নাসরিন আক্তার, দুই মেয়ে লাবন্য আক্তার ও অনন্যা সুলতানা।

 

নিউজজি/এসএম

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

copyright © 2016 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers